SHARE

লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিদ্যালয় চলাকালীন রহমত আলী নামে এক প্রধান শিক্ষকে প্রকাশ্যে মারধর ও জামা-কাপড় ছিড়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সহকারী শিক্ষিকা ইসমত আরা বেগমের বিরুদ্ধে।  শুধু তাই নয় এ সময় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও কেড়ে নিয়ে যায় ওই শিক্ষিকা। 
বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার পূর্ব সিংগীমারী বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘটনাটি ঘটেছে। 
এ বিষয়ে লাঞ্চিত প্রধান শিক্ষক রহমত আলী জানান, গত বুধবার বিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের সাথে ওই শিক্ষিকা ইসমত আরার ঝগড়া হয়।  পরে বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে বিষয়টি নিয়ে আমি ওই অভিভাবকের সাথে কথা বলতেছিলাম।  এ সময় ইসমত আরা আমাকে অমান্য করে ওই অভিভাবকের সাথে আবারো ঝগড়ার চেষ্টা করে।  আমি তাকে ওনার সাথে কথা না বলার জন্য বার বার নিষেধ করি।  তাকে আমি বলি বিষয়টি নিয়ে আমি যখন কথা বলতেছি তখন আর কারো কথা বলার দরকার হয়না।  একথা বলা মাত্রই ওই শিক্ষিকা আমার উপর আক্রমন করে বসে।  আমাকে এলোপাতারি মারধর শুরু করে।  আমার পরনের পাঞ্জাবী ছিড়ে দেয়।  লাঠি ও চেয়ার উঠায় মারার জন্য।  এরপর আমার মোবাইল ফোনটি নিয়ে বিদ্যালয় থেকে চলে যায়।   
এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষিকা ইসমত আরা বেগম অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমি ওনাকে কোন মারধর করিনি, শুধু কথাকাটাকাটি হয়েছে মাত্র।  
এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবুল কালামের মোবাইল ফোনে একাধিক বার কল করা হলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেনি।   
এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা বেলাল হোসেন জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।  তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।  

31 Views