২৪ ঘণ্টায় সৌদি আরবে ৮৮৫ প্রবাসী আটক

13
SHARE
সৌদি আরবের রাজধানীতে অধিকাংশ অপরাধ ঘটিয়ে থাকে অবৈধ প্রবাসীরা। ছবি: আরব নিউজ

সৌদি আরবে প্রবাসীদের ধরপাকড় থেমে নেই। স্থানীয় নিয়ম ভঙ্গ করার অভিযোগে দেশটির রাজধানী রিয়াদে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৮৫ জন প্রবাসীকে আটক করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী।

আরব নিউজের সূত্রে জানা যায়, সৌদি আরবে অবৈধভাবে বসবাসকারী সকল প্রবাসীদের আটক করতে নিরাপত্তা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়ে গত সপ্তাহে একটি আদেশনামায় সই করেছেন রিয়াদের গভর্নর যুবরাজ ফয়সাল বিন বন্দর।

এর আগে গত রোববার বসবাসের বৈধ অনুমোদন বা আকামা না থাকা এবং সৌদি আরবের শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে ২৪ হাজার প্রবাসীকে আটক করেছে দেশটির নিরাপত্তা কর্মীরা। আকামার মেয়াদ শেষে এমন কিছু অভিবাসীকে নতুন করে ৬০ দিনের সময় দিয়েছে সৌদির পাসপোর্ট অধিদপ্তর। পরে তাদের আকামা নবায়ন করতে অতিরিক্ত তিন দিন সময় দেয় কর্তৃপক্ষ।

সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রতিবেদন অনুযায়ী রাজধানীতে থাকা অবৈধ প্রবাসীরা সবচেয়ে বেশি অপরাধ ঘটিয়ে থাকে। বেশিরভাগ প্রবাসীদের আটক করা হয়েছে সুমাইসি, আল-ফয়সালিয়াহ, হায় আল ওয়াজারাত এবং তুমামা এলাকা থেকে।

আটককৃতদের মধ্যে ৬ জন চিহ্নিত অপরাধী, অপরাধমূলক কাজের জন্য ৫ জন, জালিয়াতির অভিযোগে ৫ জন, গাড়ি চুরির অপরাধে ৩ জন এবং দলিল জালিয়াতির জন্য ৫ জনকে আটক করা হয়।এদের সঙ্গে সৌদি বংশোদ্ভূত নয় এমন ৫ জন নিরাপত্তারক্ষী ও ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের জন্য ৩২৩ জন মোটরসাইকেল চালককেও আটক করে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনী।

এছাড়া সৌদি তদন্তকারী দল ৬ হাজার ৫০০ ভুয়া গাড়ির যন্ত্রাংশ, ১২ হাজার ভুয়া বৈদ্যুতিক যন্ত্র ও বৈদ্যুতিক গ্যাজেট ও ৩ হাজার ২০০ ভুয়া মোবাইল চার্জার এবং ১৬ হাজার কসমেটিকস, মুখে ও গায়ে মাখার ক্রিম জব্দ করেছে। কসমেটিকস ও ক্রিমগুলো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত মান অনুযায়ী নয়।

জানা গেছে সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা, শ্রম, সামাজিক উন্নয়ন, শিল্প ও বিনিয়োগ মন্ত্রলায়ের সহযোগিতায় এ তদন্ত পরিচালনা করছে পুলিশ। অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন অভিবাসন বিভাগও এই তদন্তে সহযোগিতা করছে।এই তদন্ত অভিযান শেষে পুলিশ সন্দেহভোজন প্রবাসীদের আদালতে শাস্তি ও নির্বাসনের জন্য হাজির করবে। একই ধরণের অভিযান রাজ্যের সকল প্রদেশে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সম্মতি নিয়ে পরিচালনা করা হবে।

আটক এড়াতে প্রবাসীদের তাদের সনদপত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও পরিবহন রেজিস্ট্রেশন সনদপত্র সঙ্গে রাখার জন্য ও নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।