জাতীয়

৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রেখে সোমবার থেকে বাস চালু

শেয়ার করুন

বিডি রিপোর্ট টোয়েন্টিফোর ডটকম :

গোটা বাসের অর্ধেক অর্থাৎ ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রেখে সোমবার থেকে বাস চলাচল শুরু হবে। তার আগে রোববার (৩০ মে) থেকে ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল শুরু হচ্ছে। 

শুক্রবার বিকেলে সড়ক পরিবহন ও লঞ্চ মালিক–শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে লঞ্চ, বাস ও ট্রেন চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। শুক্রবার (২৯ মে) বিকেলে বনানী বিআরটিএ কার্যালয়ে পরিবহন মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সচিব নজরুল ইসলাম।

জানা গেছে, সোমবার থেকে নগর পরিবহন ও দূরপাল্লার বাস চালু হবে। তবে ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রাখা হবে। যাত্রীদের অবশ্যই মাস্ক পরিধান করে বাসে উঠতে হবে। পরিবহন মালিকেরা চালক ও সহকারীদের মাস্ক সরবরাহ করবে। বাস ছাড়ার আগে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। আর এসব বিষয় পর্যবেক্ষণ করবে বিআরটিএ, পুলিশ ও মালিক–শ্রমিক সংগঠন। 

বৈঠক সূত্রে আরো জানা গেছে, বাসে ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রাখা হলে পরিবহন মালিকদের লোকসান গুণতে হবে; এমন দাবি করে ভাড়া বৃদ্ধির দাবি তোলেন তারা। তবে বিআরটিএর স্থায়ী ব্যয় বিশ্লেষণ কমিটি আগামীকাল শনিবার বৈঠকে ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে ভাড়া বাড়লে কত বাড়বে।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তা জানান, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় বাস চলাচল নিষেধ। তাই দূরপাল্লার বাসগুলো পথে কোথাও যাত্রী তুলবে না। তবে কেউ নামতে চাইলে নামানো হবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খোন্দকার এনায়েত উল্যাহ আরটিভি অনলাইনকে বলেন, পুলিশ ও বিআরটিএর সহায়তায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রী তোলার সর্বাত্মক চেষ্টা করা হবে। অর্ধেক আসন ফাঁকা রাখা হবে। তাই ভাড়া বৃদ্ধির আমরা দাবি জানিয়েছি। সে বিষয়ে আগামীকাল বৈঠক হবে। দেখা যাক সেখানে কি সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, পরিবহন শ্রমিকদের জীবন ও জীবিকার কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখন স্বাস্থ্যবিধিসহ সরকারি নিয়ম মেনে যানবাহন পরিচালনার দায়িত্ব মালিক-শ্রমিকদের।