হেড লাইন

‘সব সময় মাস্ক পড়ে থাকতে হবে না’

শেয়ার করুন

জনগণকে ঝুঁকিতে ফেলার মতো মুজিববর্ষের কোন আয়োজন নয় বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, মুজিববর্ষের জন্য আমাদের বিশাল আয়োজন ছিলো। ব্যাপক জনসমাগম হতে পারে এমন কর্মসূচি পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। মুজিব বর্ষ উদযাপন এমনভাবে হবে যাতে জনগণ ঝুঁকির মুখে না পড়ে।
আজ সোমবার গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের শুরুতে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি করোনা ভাইরাস নিয়ে অহেতুক আতঙ্কিত না হয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পাওয়া আমাদের জন্য অত্যন্ত সৌভাগ্যের। তারপরেও আমাদের কাছে জনগণের কল্যাণ সবচেয়ে বড়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেহেতু ব্যপক জনসমাগম এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে। তাই জনসমাগম আপাতত বন্ধ রেখেছি। পরবর্তী সময়ে তারিখ জানানো হবে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় প্রতি জেলায় হাসপাতালে করোনা ইউনিট খোলা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সব সময় মাস্ক পড়ে থাকতে হবে না। কিন্তু সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। অনেকেই পাগল হয়ে মাস্ক কিনছে। এটা দরকার নেই। শুধু যাদের সর্দি-কাশি আছে তাদের সাবধানে থাকতে হবে। সাধারণত ঋতু বদলের সময় মানুষের সর্দি-কাশি হয়, সাধারণ সর্দি-জ্বরে ভয় নেই। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের কাছে জনগণের কল্যাণ সবচেয়ে বড়। আমরা উদযাপন করবো, কিন্তু উদযাপনটা একটু ভিন্নভাবে হবে। লোকসমাগম যাতে কম হয়, সেদিকে দৃষ্টি রেখে উদযাপন করবো। যেহেতু বিশ্বব্যাপী এটা ছড়িয়েছে, সেখানে দেশের মানুষের নিরাপত্তা দেয়াটা আমাদের দায়িত্ব-কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী আমরা বিশাল আকারে করার উদ্যোগ নিয়েছিলাম। যেখানে লাখ লাখ মানুষ জমায়েত হবে। কিন্তু আমরা জমায়েতগুলো বন্ধ করে দিয়েছি। এমনকি ২৬শে মার্চ শিশুদের যে অনুষ্ঠান আমরা করি, সেটাও স্থগিত করে দিয়েছি। যাতে কোনোভাবে এটা মানুষের ক্ষতি করতে না পারে।