রাজনীতি

শিগগিরই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে: ফখরুল

শেয়ার করুন

স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব সুরক্ষা ও মৃতপ্রায় গণতন্ত্র পুণরুজ্জীবিত করতে দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে শিগগিরই বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে আজ বুধবার দলের পক্ষে এক বাণীতে এ কথা বলেন তিনি।মির্জা ফখরুল বলেন, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, একুশের চেতনার উত্তরাধিকারী হয়ে এদেশের সংগ্রামী মানুষকে সাথে নিয়ে আমরা স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব সুরক্ষা ও মৃতপ্রায় গণতন্ত্র পুণরুজ্জীবিত করতে শিগগিরই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবোই, ইনশাল্লাহ।তিনি বলেন, অধিকার আদায় এবং অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হতে ভাষা শহীদরা আমাদের প্রেরণার উৎস। মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করে তারা আত্মত্যাগের বিনিময়ে যে গৌরব স্থাপন করে গেছেন, পরবর্তী সময়ে তা বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। তাদের আত্মত্যাগের ধারাবাহিকতায় গণতান্ত্রিক ও স্বাধিকার আন্দোলনের পথ বেয়ে আমরা অবতীর্ণ হয়েছি স্বাধীনতা যুদ্ধে। প্রতিষ্ঠা করেছি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।একুশের অধিকারবোধের চেতনা আর গণতন্ত্র ধ্বংস করে বিএনপির চেয়ারপারসনকে বন্দি করে রাখা হয়েছে বলে বিবৃতিতে অভিযোগ করেন বিএনপির মহাসচিব। তিনি বলেন, স্বাজাত্যবোধ ও অধিকারবোধের চেতনা পরিপূর্ণতা দান করেছিল মহান ২১ ফেব্রুয়ারি। সেই চেতনা নষ্ট করে একদলীয় শাসনের পাথর আজ জনগণের কাঁধে চাপানো হয়েছে। ২৯ ডিসেম্বর মধ্যরাতের নির্বাচনে ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে জনগণকে প্রতারিত করা হয়েছে।গণতন্ত্রকে সমাহিত করে এই দুঃশাসন দীর্ঘায়িত করতে অবৈধ শক্তির জোরে সাজানো মিথ্যা মামলায় জনগণের প্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে বন্দি করে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করা হয়েছে।ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে অধিকতর সমৃদ্ধ করে তুলতে সবাইকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানানো হয় এই বিবৃতিতে।তিনি আরও বলেন, মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে আমি ‌৫২-র ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই। তাদের রুহের মাগফেতার কামনা করি।