রংপুর বিভাগ

রাজারহাটে অটো- রিকসার বেপরোয়া চালক নিত্য দিনেই দুর্ঘটনা

এ.এস.লিমন রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ব্যাটারী চালিত রিকসার কারনেই রাজারহাট শহরের নাগরিকদের ভোগান্তি চরমে। বৈদ্যুতিক মোটর চালিত অবৈধ রিকসা গুলোই শহরে যানজটের অন্যতম কারণ। এছাড়াও বেপরোয়া চলাচলের কারনে নিত্য দুর্ঘটনা, যত্রতত্র পার্কিং, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়সহ নানাহ অভিযোগ যাত্রী ও পথচারীদের।

সরজমিনে দেখা যায়, রাজারহাট শহরের প্রধান প্রধান সড়ক গুলো ছাড়াও অলি গলি গুলোও ব্যাটারী চালিত রিকসার দখলে। এদিকে রিকসাগুলোতে স্থাপিত অবৈধ এলইডি লাইট এবং নিষিদ্ধ ঘোষিত উচ্চমাত্রার হাইড্রোলিক হর্ণের কারনে পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে।

নারী শিশু ও কোমলমতি স্কুলগামী শিকার্থীরা  হাসপাতালে অবস্থানরত অসুস্থ রোগীরা অবৈধ উচ্চমাত্রার হাইড্রোলিক হর্ণের কারনে আরো বেশী অসুস্থ হয়ে পড়ছে। সরাসরি বৈদ্যুতিক খাম্বা থেকে মিটার বিহীন অবৈধ লাইন দিয়ে এ সমস্ত রিকসার ব্যাটারী চার্জ করার ফলে বিদ্যুৎ চুরি ও অপচয় হচ্ছে। বেপরোয়াগতির কারনে যত্রতত্র দুর্ঘটনার কারনে বিকল হয়ে শহর জুড়ে তৈরী হয় যানজট।

অবৈধভাবে নির্মিত ও চালিত মোটর রিকসাছড়াছড়িতে শহরের অলিগলিতে আগের চেয়েও বেড়েছে দুর্ঘটনা ও যানজট। রির্চাজেবল ইলেকট্রিক ব্যাটারি দিয়ে মোটর চালিত এই রিকশাগুলো চলছে প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে। এ কারণে বিদ্যুতের চুরি ও অপচয় ঘটছে বলে মনে করছে সুশীল সমাজ।

প্রতিদিনই শহরে এবং শহরের বাইরে যেসব দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায় তার অধিকাংশ কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক ব্যাটারী চালিত অবৈধ রিকসাকে। দিন দিন এর পরিমাণ বৃদ্ধি, অদক্ষ ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালক এবং অসাবধাণতা এরকম দূর্ঘটনা ঘটছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। এছাড়া রাতের বেলায় উচ্চমাত্রার অবৈধ এলইডি লাইটের আলোর কারনে বিপরীত দিকে থেকে আসা গাড়ীগুলো রাস্তা না দেখতে পেয়ে দূর্ঘটনার স্বীকার হয়।

রাজারহাট বাজারের ব্যবসায়ী সবুজ মিয়া জানান, বাজারে লাইসেন্সবিহীন বৈদ্যুতিক ব্যাটারী চালিত অবৈধ রিক্সার দৌরাত্ম্যও ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব অটো রিক্সা চালাচ্ছেন কিছু অপ্রাপ্ত বয়সের ছেলে চালকরা। আর এসব রিক্সা চালকেরা যাত্রীদের গন্তব্যস্থান না চিনলেও হাঁকিয়ে নিচ্ছেন অধিক ভাড়া।

রাজারহাট উপেজলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান জানান, শহরের সৌন্দর্যবৃদ্ধি এবং যানজট ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধে এ সব অবৈধভাবে নির্মিত ব্যাটারী চালিত রিকসা উচ্ছেদে শীঘ্রই অভিযান চালানো হবে।