আর্ন্তজাতিক

যুক্তরাষ্ট্র-তালিবান চুক্তি ২৯ ফেব্রুয়ারি

এক বছরের বেশি সময় ধরে তালেবানের সঙ্গে আলোচনা করছে যুক্তরাষ্ট্র৷ অবশেষে দুই পক্ষই জানিয়েছে, আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারি চুক্তি স্বাক্ষর হবে৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও প্রথমে এক বিবৃতিতে ২৯ তারিখ চুক্তির বিষয়টি জানান৷ এর কিছুক্ষণ পর তালেবান মুখপাত্র জাবিহউল্লাহ মুজাহিদের বিবৃতিতেও বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়৷

এর আগে শুক্রবার দিনের শুরুতে আফগানিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জাভেদ ফয়সাল শনিবার থেকে সপ্তাহব্যাপী ‘সংঘাত হ্রাস’ কর্মসূচি শুরু হবে বলে জানান৷ অর্থাৎ, এই সময় সংঘাত কমাতে সচেষ্ট থাকবে মার্কিন বাহিনী, তালেবান ও আফগান কর্তৃপক্ষ৷

মাইক পম্পেও বিবৃতিতে বলেছেন, ২৯ ফেব্রুয়ারি চুক্তি স্বাক্ষরের পর আফগানিস্তানের বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে আলোচনা শুরু হবে৷ সেখানে স্থায়ী যুদ্ধবিরতি ও আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎ রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হবে৷ পাকিস্তানে তালেবানের এক সূত্র এএফপিকে জানিয়েছেন, ২৯ তারিখ চুক্তি হলে তালেবান ও আফগান সরকারের মধ্যে ১০ মার্চ আলোচনা শুরু হবে৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য স্বীকার করেছেন যে, চ্যালেঞ্জ এখনো আছে৷ তবে যতখানি অগ্রগতি হয়েছে তাতে আশান্বিত হওয়া যায় বলে মনে করেন তিনি৷

যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে চুক্তি সইয়ের বিষয়টি ‘সংঘাত হ্রাস’ কর্মসূচির সফলতার উপর নির্ভর করছে৷ এর আগে গত সেপ্টেম্বরে একবার দুই পক্ষ চুক্তির কাছাকাছি চলে গিয়েছিল৷ কিন্তু সংঘাত চলতে থাকায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প শেষ মুহূর্তে সরে এসেছিলেন৷

গত ১৮ বছর ধরে তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ চলে আসছে৷ আফগানিস্তানে এখনো ১২ থেকে ১৩ হাজার মার্কিন সৈন্য রয়েছে৷
সূত্র : ডয়চে ভেলে