লাইফস্টাইল

মাথায় চুল কম থাকলে করোনার ঝুঁকি বেশি: গবেষণা

শেয়ার করুন
 

বিডি রিপোর্ট টোয়েন্টিফোর ডটকম :

যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক সম্প্রতি জানিয়েছেন, যে পুরুষদের মাথায় চুল কম বা যাদের নেই তাদেরই করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। এই নতুন রিস্ক ফ্যাক্টরের নাম দেয়া হয়েছে ‘গ্যাব্রিন সাইন’। করোনা আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এক চিকিৎসক ডা. ফ্র্যাঙ্ক গ্যাব্রিনের মৃত্যুর পরে এই নাম দেয়া হয়েছে। গ্যাব্রিনের মাথাতেও চুল ছিল না বলে জানা যায়।

এই গবেষণার প্রধান ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর কার্লোস ওয়াম্বিয়ার বলেন, মাথায় চুল কম থাকলে সংক্রমণের সম্ভাবনা ও তার প্রভাব অনেক বেশি বেড়ে যায়। চীনের উহান শহর থেকে করোনার সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকেই এটা নিয়ে গবেষণা শুরু করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা চুলচেরা বিশ্লেষণ করতে গিয়ে পুরুষদের মাথায় চুল কম থাকাটাকেও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার একটি কারণ হিসেবে মেনে নিয়েছেন।

গবেষকরা দেখেছেন যে, মেয়েদের তুলনায় ছেলেদেরই করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। আর তার অন্যতম কারণই হলো মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের জীবনযাত্রার পার্থক্য, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ইত্যাদি। সম্প্রতি গবেষণায় দেখা গেছে, পুরুষদের শরীরে নিঃসৃত হওয়া হরমোন এন্ড্রোজেন শুধু চুল পড়ার ক্ষেত্রেই প্রধান ভূমিকা পালন করে না বরং করোনাভাইরাসের ক্ষমতাও বাড়িয়ে দেয়।

তাই পুরুষদের চুল পড়া কমানোর জন্য চিকিৎসকরা এই হরমোনের প্রভাব কম করার চেষ্টা করছেন। প্রফেসর ওয়াম্বিয়ার জানিয়েছেন, ইতোমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রে চুল পড়া কমানোর জন্য যে ওষুধ ব্যবহার করা হয়, সেই ওষুধ নিয়ে করোনা সংক্রমণ কমানো যায় কিনা তার গবেষণা শুরু হয়েছে।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, স্পেনের মাদ্রিদের তিনটি হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা ভর্তি রয়েছেন, তাদের মধ্যে ৭৯ শতাংশ পুরুষের মাথায় চুল নেই বা কম আছে। আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব ডার্মাটোলজিতে প্রকাশিত একটি জার্নালে বলা হয়েছে, ১২২ জন রোগীর মধ্যে গবেষণা করে দেখা গেছে যে- তাদের মধ্যে ৭১ শতাংশ রোগীর মাথায় চুল নেই। যাদের চুল কম, তাদের শরীরে এই ভাইরাসের প্রভাব অনেক বেশি বলেও উঠে এসেছে এই গবেষণায়।