আইন আদালত

‘ক্যাসিনো গুরু’ আরমান পাঁচ দিনের রিমান্ডে

শেয়ার করুন

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও তার ক্যাসিনো গুরু হিসেবে পরিচিত এনামুল হক আরমানকে মা’দক আইনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত।

আরমান ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। ক্যাসিনোকাণ্ডের পর তাকেও যুবলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম ঢাকা মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেন মা’দক মামলায় তার পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই দিন অস্ত্র ও মা’দক মামলায় সম্রাটের ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আরমান ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার সোনাপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। ব্যক্তিগত জীবনে স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে তার সংসার।

ক্যাসিনোকাণ্ডের পর সম্রাটের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মা’দক আইনে দুটি মামলা করেছিল র‌্যাব। এর মধ্যে মা’দক মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহ-সভাপতি এনামুল হক আরমানকেও আসামি করা হয়েছে।

গত ১৪ অক্টোবর বিকালে র‌্যাব-১ বাদী হয়ে রমনা মডেল থানায় মামলা দুটি করে। এই দুই মামলার বাদী র‌্যাব-১ এর ডিএডি আব্দুল খালেক।

যুবলীগ নেতা সম্রাট ও তার সহযোগী আরমান কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রামের মনিরুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন।

৬ অক্টোবর রাতে ঢাকা থেকে র‌্যাবের একটি দল ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের সময় আরমানকে মদ্যপ অবস্থায় পাওয়া যায় এবং তার পকেট থেকে ১৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব। পরে মা’দক সেবনের দায়ে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত আরমানকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন।

গ্রেপ্তারের পর আরমানকে ফেনী থেকে কুমিল্লা কারাগারে আনা হয়। পরে রিমান্ড শুনানির জন্য আরমানকে ঢাকায় আনা হয়।