প্রচ্ছদ আজকের সেরা সংবাদ করোনা: দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সবথেকে ভয়াবহ আঘাত ইন্দোনেশিয়ায়

করোনা: দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সবথেকে ভয়াবহ আঘাত ইন্দোনেশিয়ায়

শেয়ার করুন

চীনের বাইরে প্রথম করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছিল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। এখন অঞ্চলটির দেশগুলোর মধ্যে সবথেকে ভয়াবহ অবস্থা ইন্দোনেশিয়ার। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটিতে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ১৮১ জন। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২০০০ মানুষ। এই হিসেব অনুযায়ী দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় করোনায় সবথেকে বেশি মৃত্যুর হার ইন্দোনেশিয়াতেই। এ খবর দিয়েছে আল-জাজিরা।
খবরে বলা হয়, ৩রা এপ্রিল পর্যন্ত হিসেব অনুযায়ী- ইন্দোনেশিয়ায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে প্রাণহানীর মাত্রা ৯.১ শতাংশ। যা বিশ্বব্যাপী ৫ শতাংশের প্রায় দুইগুন।

অথচ অঞ্চলটির আরেক রাষ্ট্র ফিলিপাইনে মৃত্যুর হার ৪.৫ শতাংশ। ইন্দোনেশিয়ার পাশাপাশি দ্রুত বাড়ছে মালয়েশিয়ায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ৩৫০০ এর বেশি মানুষ। তবে সেখানে মৃত্যুর হার ইন্দোনেশিয়া থেকে কম।
করোনার ভয়াবহ ধাক্কার মধ্যে চিকিৎসা সরঞ্জামের সংকটে ভুগছে ইন্দোনেশিয়া। ফলে করোনার চিকিৎসায় রয়েছেন যারা তাদের জীবন হুমকিতে পড়ছে। রাজধানী জাকার্তাতে যথাযথ নিরাপত্তা পোশাক না পরায় আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১০০ স্বাস্থ্যকর্মী। তাদের মধ্যে মারা গেছেন অন্তত ১৩ জন।
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় করোনায় প্রথম আক্রান্ত দেশগুলোর একটি মালয়েশিয়া। দেশটিতে তাবলীগ জামাতের মাধ্যমে দেশব্যাপী ছড়িয়ে পরে ভয়াবহ এই ভাইরাস। তবে জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাস সম্পূর্ন করোনামুক্ত ছিল ইন্দোনেশিয়া। কিন্তু মার্চ মাসে এসে প্রথম করোনা আক্রান্ত ধরা পড়ে দেশটিতে। এরপরই হঠাৎ করেই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে। পাশাপাশি বাড়তে থাকে মৃতের সংখ্যাও। এ অঞ্চলের অন্য রাষ্ট্রগুলিতে ইন্দোনেশিয়ার মত এত ভয়াবহ মৃত্যুহার আর দেখা যায়নি। দেশটিতে সরকার করোনা নিয়ে বড় ধরণের কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলেই এমন সংকট দেখা দিয়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। চিকিৎসক নেতারা বলছেন, তাদের কাছে কোনো সরঞ্জাম নেই। স্বাস্থ্যকর্মীরাও এমন অবস্থার জন্য প্রস্তুত নয়। তাছারা সরকার তথ্যের ক্ষেত্রে কোনো স্বচ্ছতা রাখছে না।