হেড লাইন

করোনা চিকিৎসায় ১১ হাসপাতালে আইসিইউ ভেন্টিলেটর

শেয়ার করুন

করোনাভাইরাস চিকিৎসায় রাজধানীর উত্তরাস্থ কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে সিটি স্ক্যান মেশিন সরবরাহ এবং দেশের ১১টি হাসপাতালে আইসিইউ, ভেন্টিলেটর বরাদ্দ ও সরবরাহের নির্দেশ দিয়েছে সরকার।
গতকাল বৃহস্পতিবার পৃথক দুটি আদেশে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের (হাসপাতাল অনুবিভাগ) সিনিয়র সহকারি সচিব উম্মে হাবিবা স্বাক্ষরিত চিঠিতে এমন নির্দেশ দেয়া হয়।

কেন্দ্রীয় ঔষাধাগারের পরিচালককে (ভান্ডার ও সরবরাহ) লেখা চিঠিতে বলা হয়, ‘…করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর জরুরি চিৎিসায় হসপিতাল সার্ভিসেস ম্যানেজমেন্ট-এর ২০১৮-১৯ অথবছরে প্যাকেজ নং ১৮২৩-এর আওতায় সংগৃহীত এবং এনআইকেডিইউতে সরবরাহকৃত সিটি স্ক্যানারটি কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে সাময়িক বরাদ্দ প্রদানপূর্বক স্থানান্তর ও স্থাপনের পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।’

স্বাস্থ্য অধিদফতরের লাইন ডাইরেক্টর (হসপিটাল সার্ভিসেস ম্যানেজমেন্ট) এবং কেন্দ্রীয় ঔষাধাগারের পরিচালক (ভান্ডার ও সরবরাহ) বরাবর লেখা চিঠিতে বলা হয়, ‘..ঢাকা মহানগরসহ বিভাগীয় পর্যায়ের কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্র ডেডিকেটেড হাসপাতালের আইসিইউ ভেন্টিলেটর অপারেশনের জন্য প্রয়োজনীয় আইসিইউ বেড, পেশেন্ট মনিটর, ইনফিউশন পাম্প ও সিরিঞ্জ পাম্প ইত্যাদি আনুষাঙ্গিক সকল যন্ত্রপাতি বরাদ্দ পূর্বক সরবরাহ এবং সংযোজনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো। ঢাকাসহ দেশের ১১টি হাসপাতালের জন্য এসব বরাদ্দ ও সরবরাহের নির্দেশ দেয়া হয়।

তার মধ্যে সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ৯টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫ টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ৭টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, রংপুর শিশু হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, খুলনা ডায়বেটিক হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, ময়মনসিংহ সূর্যকান্ড (এসকে) হাসপাতালে ৫টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর এবং ঢাকার শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইন্সিটিউট হাসপাতালে ১৬টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, কুমিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৫টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে ৩৩ টি আইসিইউ ভেন্টিলেটর বরাদ্দ ও সরবরাহের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।