সিপিএফ নীতিমালা পরিবর্তন

SHARE

ভগ্নাংশের কারণে সিপিএফ (কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড) নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা দূর করতে নীতিমালা পরিবর্তন করেছে সরকার। পরিবর্তিত নীতিমালায় এখন থেকে ফান্ডে মূল বেতনের সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ কর্তন করা যাবে। সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি হয়েছে।

সূত্র জানায়, সিপিএফ এর বিদ্যমান নীতিমালায় মাসিক কর্তনের পরিমাণ ৮.১৩ শতাংশ কম হবে না বলে উল্লেখ ছিল। কিন্তু এই হিসাব সবক্ষেত্রে অভিন্নভাবে প্রতিপালন করা হচ্ছে। তা ছাড়া ভগ্নাংশের কারণেও নানা জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। এসব কারণে নীতিমালায় এই পরিবর্তন করা হয়েছে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা সম্প্রতি এক পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, ‘সরকারের পেনশন স্কিমের আওতা বহির্ভূত রাষ্ট্রায়ত্ত/স্ব-শাসিত/বিধিবদ্ধ সংস্থা এবং অধিনস্ত অঙ্গ প্রতিষ্ঠানসমূহের কর্মচারীদের জন্য প্রযোজ্য দ্য কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড রুলস, ১৯৭৯ এর রুল ৮ এর ১(বি) এবং রুল ১১(২) এর বিধান অভিন্নভাবে প্রতিপালন হচ্ছে না। এই নীতি অভিন্নভাবে প্রতিপালনের দুটি নির্দেশনা জারি করা হলো।

এর একটি নির্দেশনায় পরিপত্রে বলা হয়েছে, রুল ৮ এর ১(বি) অনুযায়ী বর্ণিত তহবিলে মাসিক কর্তনের পরিমাণ চাঁদা দাতার মূল বেতনের ৮.১৩ শতাংশের এর কম হবে না। এখন ভগ্নাংশ পরিহার করে মাসিক কর্তনের পরিমাণ চাঁদা দাতার মূল বেতনের সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ নির্ধারণ করা হলো।’

পরিপত্রের দ্বিতীয় নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে, ‘মাসিক কর্তনের পরিমাণ সর্ব্বোচ্চ ১০ শতাংশ হলেও রুল ১১(২) অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কন্টিবিউশন চাঁদা দাতার মূল বেতনের ৮.১৩ শতাংশের সমান হবে।’

উল্লেখ্য, পেনশন স্কিমের আওতায় বহির্ভূত প্রতিষ্ঠানে এই কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড প্রথা চালু রয়েছে। এই ফান্ডে বেতনভুগ চাকরিজীবীদের বেতন থেকে যদি ১০ শতাংশ বেতন কাটা হয়, তবে সেক্ষেত্রে নিয়োগদাতা নিজে সেই চাকরিজীবীর জন্য আর ১০ ভাগ অর্থ প্রদান করবেন। সংশ্লিষ্ট চাকরিজীবী অবসরে যাওয়ার পর এই অর্থ তাকে প্রদান করা হবে।