ঠাকুরগাঁওয়ে কিশোরী অন্তঃসত্ত্বার অভিযোগে বখাটে আটক

SHARE

মোঃ আরিফুজ্জামান আরিফ ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি।। ঠাকুরগাঁওয়ে কিশোরী অন্তঃসত্ত্বার অভিযোগে বখাটে রবিউলকে আটক করে সদর থানা পুলিশ। সে আরাজী পাহাড়ভাঙ্গা এলাকায় খমির উদ্দিনের ছেলে।

থানা সুত্রে যানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশ নারগুন কহরপারা এলাকা থেকে আজ সকালে তাকে আটক করেনন।

উল্লেখ যে, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা চিলারং ইউনিয়নের আরাজী পাহাড়ভাঙ্গা এলাকায় বখাটে রবিউল ইসলামের বিয়ের প্রলোভনে ঐ কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়।
মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) রাতে ওই  কিশোরীকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
নির্যাতীতা ওই কিশোরীর মা জানান বখাটে রবিউল ইসলাম বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত এক বছর যাবত অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে।

বিষয়টি এক প্রতিবেশীর মাধ্যমে জানতে পারলে ইউপি সদস্য নাসিরুলকে অবহিত করি। পরে ইউপি সদস্য বখাটে রবিউল ইসলামকে গ্রাম পুলিশ দিয়ে ধরে নিয়ে আসে। রবিউল ইসলাম (২০) ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলে ওই পরিবারকে মীমাংসার প্রস্তাব দেয়। রাত গড়িয়ে বিষয়টি সুরাহা না হলে ইউপি সদস্য নাসিরুল  গ্রাম পুলিশ সাইদুর রহমানের হেফাজতে একটি ঘরে রবিউলকে আটকে রাখে।
ভুক্তভোগীর পরিবার সকালে উঠে দেখে গ্রাম পুলিশ সাইদুর রহমান বখাটে রবিউল ইসলামকে ভাগিয়ে দিয়েছে।
কিশোরী জানান, রবিউল বিয়ের কথা বলে আমার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলে। আমি অন্তসত্ত্বা হয়ে গেলে সে আমাকে বিয়ে করতে রাজি হয় না। উল্টো গর্ভপাতের জন্য চাপ প্রয়োগ করে। পরে নিরূপায় হয়ে আমার প্রতিবেশির মাধ্যমে আমার পরিবারকে জানাই। রবিউল ইসলাম যেন আমাকে বিয়ে করে, আমার জীবনটা এভাবে নষ্ট হোক আমি চাই না।
ইউপি সদস্য নাসিরুল ইসলাম জানান, রবিউল কিশোরীকে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বার কথা স্বীকার করলে তাকে গ্রাম্য পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়। সেখান থেকে কৌশলে সে পালিয়ে যায়।

অন্তসত্ত্বা ওই কিশোরীর নিরাপত্তার জন্য দু’জন নারী পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।