আমি জিয়ার আদর্শে বিএনপি করিনা, আমি আমার স্বার্থে বিএনপি করি হারুনুর রশিদ পাপ্পু

SHARE

নাটোরের লালপুরে যুবদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ পাপ্পুর বক্তব্যের জেরে ফেসবুক মিডিয়াসহ তৃণমূল বিএনপিতে তার বিরুদ্ধে  তূমুল সমালোচনা চলছে।  তিনি তার বক্তব্য প্রদানকালে বলেন, আমি সাবেক ক্রীড়া মন্ত্রী ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ফজলুর রহমান পটলকে বলেছিলাম।  আমি আপনাকে ভালোবেসে দল করিনা।  আমি জিয়ার আদর্শে বিএনপি করিনা।  আমি বিএনপিকে ভালোবেসেও বিএনপি করিনা।  আমি আমার স্বার্থে বিএনপি করি।  আমার স্বার্থে আঘাত লাগলে আর বিএনপি করবো না।  দলের একজন সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যানের মুখ থেকে এমন অগ্রহণযোগ্য বক্তব্য মেনে নিতে পারছেনা বিএনপির সাধারণ কর্মী থেকে ত্যাগী নেতৃবর্গরা।  এ নিয়ে যেমন মাঠে ময়দানে চায়ের স্টলে সমালোচনা চলছে।  তেমনই সমালোচনার ঝড় বইছে ফেসবুকে।  গত ২৭ অক্টোবর রানা প্রামাণিক নামের এক ফেসবুক আইডিতে উপজেলা চেয়ারম্যানের বক্তব্য তুলে ধরলে এ পর্যন্ত ৭৯ জন বিএনপি নেতাকর্মী কমেন্টের মাধ্যমে তার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন।  তার বক্তব্যে যেমন তরুণ নেতাকর্মীদের ভিতরে ক্ষোভে দানা বেঁধেছে তেমনি দলের বয়জ্যেষ্ঠ ত্যাগী নেতা কর্মীদের মধ্যেও দেখা দিয়েছে ব্যপক প্রতিক্রিয়া।  ”জিয়ার সৈনিক লালপুর ফেসবুক আইডি থেকে রানা প্রামাণিকের পোষ্টে চেযারম্যানের বক্তব্যের প্রতিবাদ করে বলেন আমি নিজে দাড়িয়ে থেকে একথা শুনেছি।  কিন্তু প্রতিবাদ করতে পারিনি।  এটা আমার নিজের কাছে অনেক লজ্জার বিষয় আমি তা বুঝাতে পারবো না।  উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কিভাবে এমন কথা বলতে পারেন। ” ”আকতারুল আলম নামের একজন উপজেলা চেয়ারম্যানের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনি আপনার স্বার্থে দল করেন।  স্বার্থে আঘাত লাগলে দল করবেন না।  সাধারণ কর্মীরা আপনাদের পিছনে ঘোরে।  একটি প্রশ্ন আপনার কি না থাকার সময় চলে এসেছে। ” এ বিষয়ে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও গোপালপুর পৌর বিএনপির সভাপতি আবদুল্লাহ আল মামুন কচি লিখেছেন, পটল ভাই বেঁচে থাকলে এ ব্যাপারে জানতে চাইতাম।  সত্যতা যাচাই হয়ে যেত।  পাপ্পুর হয়তো খেয়াল নাই সে বিএনপির ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যান”।  এ বিষয়ে সবার উদ্দেশ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান পাপ্পু তার কমেন্টে বলেন, ”দল একটি প্রতিষ্ঠান।  দল চলে নির্দিষ্ট নিয়মে।  অনিয়মও করতে নিয়ম মানতে হয়।  যারা দলকে ভালোবাসে তাদেরকে দলের নিয়ম মানতেই হবে।  আমার কথা শুনে যাদের খারাপ লাগছে, আমার কাছে এসো আমি ব্যাখ্যা দিয়ে দেব। ”