তৈরি পোশাক রপ্তানির উপর চাপ সৃষ্টির জন্যই অ্যাকর্ড ও এ্যালায়েন্সের তদারকি : বাণিজ্যমন্ত্রী

SHARE

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বাংলাদেশের তৈরী পোশাক রপ্তানির উপর চাপ সুষ্টির জন্যই অ্যাকর্ড ও এ্যালায়েন্সের তদারকি।
অপ্রত্যাশিত রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর ক্রেতাদের সকল শর্ত পূরণ করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এরপরও ক্রেতারা অ্যাকর্ড ও এ্যালায়েন্স দিয়ে তৈরী পোশাক কারখানাগুলোর উপর চাপ সৃষ্টি করেছে’।
তিনি বলেন, দেশের তৈরী পোশাক কারখানাগুলোকে গ্রীন ফ্যাক্টরিতে রূপান্তর করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস গ্রীন বিল্ডিং কাউন্সিল বিশে^র যে ১০টি তৈরী পোশাক কারখানাকে এনার্জি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন (এলইইডি) সার্টিফিকেট দিয়েছে, তার মধ্যে প্রথম, দিতীয় ও তৃতীয়সহ ৭টি ফ্যাক্টরিই বাংলাদেশের।
তৈরী পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশের অবস্থান বিশে^র মধ্যে দ্বিতীয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘রূপকল্প-২০২১’ সফল করতে সরকার দক্ষতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এখন প্রায় ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করছে। এর প্রায় ৮১ ভাগ আসে তৈরী পোশাক রপ্তানি থেকে’।
সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ব্যবসা শিক্ষা অনুষদ আয়োজিত দু’দিনব্যাপী ব্যবসা ও অর্থনীতি বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রথমদিনে ‘দক্ষিণ এশিয়ায় বাণিজ্য বিনিয়োগে বাংলাদেশের লক্ষ্য নির্ধারনের প্রতিবন্ধকতা ও নীতিমালা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন
তিনি বলেন, ২০২১ সালে দেশের মোট রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে তৈরী পোশাক রপ্তানি থেকে আসবে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এ কারনেই আমাদের তৈরী পোশাক রপ্তানির উপর এতো চাপ।
আন্তর্জাতিক রপ্তানি বাণিজ্যে বাংলাদেশ পেপারলেস ট্রেড করার সক্ষমতা অর্জন করেছে উল্লেখ করে বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের তৈরী পোশাক কারখানাগুলো এখন নিরাপদ ও কর্মবান্ধব। এজন্য ব্যবসায়ীরা বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করেছেন, কিন্তু পোশাকের দাম বাড়েনি বরং ইউরোর অবমূল্যায়নের ফলে মূল্য কম পাওয়া যাচ্ছে। অথচ পণ্যের রপ্তানি সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে’।
তিনি বলেন, ‘১৯৯০ সালে শিশু শ্রমের অভিযোগ আনা হয়েছিল, ২০০৫ সালে কোটা প্রথা বাতিল করা হয়েছিল। বাংলাদেশ সফলভাবে এ পরিস্থিতি মোকাবেলা করে এগিয়ে গেছে। বাংলাদেশের কারখানাগুলোতে শতভাগ ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে। অথচ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি খাতে ৭ শতাংশ এবং বেসরকারি খাতে ৩৫ শতাংশ কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন নেই’।
বিশ^ বাণিজ্য সংস্থার সিদ্ধান্ত মোতাবেক এলডিসিভুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ উন্নত বিশে^র কাছ থেকে ডিউটি ও কোটা ফ্রি রপ্তানি বাণিজ্য সুবিধা পাবার কথা। ইউরোপিয়ন ইনিয়নসহ অনেক উন্নত দেশ এ সুবিধা প্রদান করলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে এ সুবিধা দেয় না। ডিউটি দিয়ে বাংলাদেশ সেখানে রপ্তানি বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে অথচ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের তৈরী পোশাকের বড় বাজার।
ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলামের সভাপতিত্বে বৈঠকে বিশেষ অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক। বৈঠকে সঞ্চালনা করেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) ফেলো অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান। বৈঠকে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলংকা, অস্ট্রেলিয়াসহ ১৩ টি দেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত ছিলেন।