পদত্যাগের প্রশ্নে নিশ্চুপ হাথরুসিংহে

31 Views
SHARE

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের মাঝপথে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে ই-মেইল বার্তায়পদত্যাগের কথা জানান হাথুরুসিংহে।

জাতীয় দল দেশে ফিরে আসার পর বিসিবি সভাপতি জানিয়েছিলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে এমন কিছু একটা হয়েছে যার কারণে হাথুরুসিংহে আর বাংলাদেশে থাকতে চাচ্ছেন না। বাংলাদেশে পদত্যাগের আনুষ্ঠানিকতা সারতে এসেছিলেন হাথুরুসিংহে। কিন্তু গণমাধ্যম এড়িয়ে যান তিনি।

কিন্তু বিসিবি সভাপতি নিজ বক্তব্যে বলেছিলেন,‘দক্ষিণ আফ্রিকা সফরটা নিয়ে প্রথম থেকেই তার (চন্ডিকা হাথুরুসিংহে) একটা অসন্তুষ্টি ছিল। খেলোয়াড়দের মানসিকতা নিয়েও তার সমস্যা ছিল।’ খেলোয়াড়দের অখেলোয়াড়সুলভ আচরণের জন্য হাথুরুসিংহে পদত্যাগ করেছেন বলে পরোক্ষভাবে বুঝিয়েছিলেন বোর্ড সভাপতি।

সেবার বাংলাদেশে এসে গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেও আজ মুখোমুখি হয়েছিলেন। তবে পদত্যাগ নিয়ে কোনো কথাই বলেননি বাংলাদেশের প্রাক্তন কোচ।

‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমার পেশাদারী দায়িত্ব নিয়ে বা বিসিবির সঙ্গে কিভাবে বিষয়টি সামলেছি, সেটি নিয়ে গভীরে যেতে চাই না। আগেও করিনি, এখনও করব না। এই প্রশ্নের উত্তর তাই দিতে পারছি না।’-বলেছেন হাথরুসিংহে।

জাতীয় দলের সাফল্যের পুরস্কার হিসেবে হাথুরুসিংহকে ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত নিয়োগ দিয়েছিল বিসিবি। বিশ্বকাপের ঠিক দেড় বছর আগে পদত্যাগের কারণে কিছুটা হলেও পরিকল্পনায় পিছিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যদি বলা হয় ‘বাংলাদেশকে বিপদে ফেলেছেন হাথুরুসিংহে’ তাহলেও ভুল হওয়ার কথা না! বিষয়টি নিয়ে একমত নন তিনি। স্পষ্ট করেই বলেছেন,‘আমি তা মনে করি না। নাহলে চলে যেতাম না।’

লো-প্রোফাইল কোচ থেকে হাই প্রোফাইল কোচ হয়েছেন হাথুরুসিংহে। তার হাত ধরে বাংলাদেশ পেয়েছে একাধিক সাফল্য। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোচ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর এখন আর সেভাবে বাংলাদেশকে ফিল করছেন না হাথুরুসিংহে।

এক প্রশ্নের জবাবে বলেছেন,‘এখানে যে সাড়ে তিন বছর ছিলাম, সেখান থেকে নিশ্চয়ই জানেন আমি ইমোশনাল মানুষ নই। ইমোশন তাই খুব বেশি নেই। তবে আমি এখনও চাই বাংলাদেশ ভালো করুক। ক্রিকেটারদের শুভকামনা জানাই। ওদের সঙ্গে অনেক ঘনিষ্ঠ ছিলাম, খুব ভালো জানাশোনা হয়ে গিয়েছিল। আমি চাই ওরা অনেক সাফল্য বয়ে আনুক। একইভাবে চাই বাংলাদেশ আরও সফল হোক। একই সঙ্গে এখন আমার যা কাজ, আমি চাই শ্রীলঙ্কা ভালো করুক।’

শ্রীলঙ্কার দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথমবারের মতো অ্যাসাইনমেন্টে এসেছেন হাথরুসিংহে। ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে এসে রোমাঞ্চিত তিনি। ত্রিদেশীয় সিরিজ ও দ্বিপাক্ষিক সিরিজ দুটোতেই ভালো ফল পেতে চান লঙ্কান কোচ।

‘বাংলাদেশে আবার ফিরে আমি রোমাঞ্চিত। সিরিজটির দিকে তাকিয়ে আছি।নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে আমি রোমাঞ্চিত। একই সঙ্গে নতুন দল ও এই দলের যা স্কিল আছে, সেসব নিয়েও আমি রোমাঞ্চিত। দেশে খুব ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি আমরা। আমাদের উন্নতির অনেক জায়গা আছে।’- যোগ করেন ৪৯ বছর বয়সি হাথুরুসিংহে।