SHARE

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা ঃ গত কয়েকদিন ধরে উত্তরের হিমেল বাতাস আর ঘন কুয়াশায় গাইবান্ধার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। জেলাসদরসহ সাতটি উপজেলার প্রায় সাড়ে তিন লক্ষাধিক মানুষ শীতবস্ত্রের জন্য চেয়ে আছে। কিন্তু শীতবস্ত্র দুরে থাক কেউ খোঁজ খবরও নিচ্ছেন না এমটাই দাবি তাদের।
সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের অভিযোগ, সরকারী বরাদ্দ অত্যন্ত কম হওয়ায় তারা সাধারণ মানুষের কাছে যেতে ভয় পাচ্ছেন। সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ছাপড়হাটি ইউনিয়নে বসবাসকারী ৩৬ হাজার মানুষের মধ্যে দরিদ্রসীমার নিচে ২০ হাজার মানুষ রয়েছে। এদের জন্য শীতবস্ত্র অতি জরুরী।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান কনক কুমার বলেন, এই ইউনিয়নে সরকারি ভাবে মাত্র কম্বল বরাদ্দ পেয়েছি চল্লিশটি। যা সংখ্যা হিসেবে প্রতি পাঁচশ জনের বিপরীতে বরাদ্দ মাত্র একটি কম্বল।
পাশের কাপাসিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন বলেন, তার ইউনিয়নের আশ্রয়ণ কেন্দ্রগুলোতে শীতবস্ত্র দেয়া হয়েছে। তবে প্রয়োজনের তুলনায় কম্বল সংখ্যা অত্যন্ত কম।
এ প্রসঙ্গে, শনিবার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) নুরুন্নবীর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল বলেন, শীতার্ত মানুষের জন্য ইতিমধ্যে ৫৬ হাজার শীতবস্ত্র দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও মন্ত্রণালয়ে আরো ৫০ হাজার শীতবস্ত্র চেয়েছি।

25 Views