SHARE

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় অষ্টম দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন কার্যক্রমে অংশ নিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। অসাংবিধানিকভাবে বিশেষ আদালতে বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে ক্যামেরা ট্রায়াল চলছে বলে এদিন মন্তব্য করেছেন তার আইনজীবীরা। অন্যদিকে, সাক্ষ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে মামলাটি এর মধ্যেই প্রমাণ হয়েছে দাবি করে দুদকের আইনজীবীরা বলেন, এই মামলায় বেগম জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রত্যাশা করছেন তারা।

কড়া নিরাপত্তায় বৃহস্পতিবার সকালে বকশিবাজারে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালতে যান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এজলাসে প্রবেশের পর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৮ম দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু করেন তাঁর আইনজীবী ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার। প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে ট্রাস্টের অর্থ লেনদেনে বেগম জিয়া কোনোভাবেই জড়িত ছিলেন না বলে দাবি করেন তিনি। জমিরউদ্দিন সরকারের পরে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। এ মামলার কোনো যৌক্তিক ভিত্তি নেই বলে দাবি করেন তিনি। এ মামলার বিচার প্রক্রিয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মওদুদ।

তিনি বলেন, এটা কোনো পাবলিক ট্রায়াল হচ্ছে না। এটা ক্যামেরা ট্রায়াল। রাজনৈতিক কারণ না থাকলে এ মামলা প্রথমেই খারিজ করে দেয়া হতো।
কৌশলের অংশ হিসেবেই বেগম জিয়ার আইনজীবীরা বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বলে মন্তব্য দুদকের আইনজীবীর। সাক্ষ্যের ভিত্তিতে মামলাটি প্রমাণিত হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, এটা পাবলিক ট্রায়াল না হলে আমরা এত লোক কীভাবে আসলাম? শত শত বিএনপির আইনজীবী এখানে কীভাবে আসলো? ৩২টা সাক্ষীর মাধ্যমে আমরা এ মামলা প্রমাণ করতে পেরেছি। আমরা যাবজ্জীবন সাজা চেয়েছি, আশা করছি আমরা সেটা পাব।

আগামী ১৬, ১৭ ও ১৮ই জানুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন আদালত।

37 Views