লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রাতের বেলায় প্রাইভেট চলছে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে

33 Views
SHARE

 

কবির হোসেন, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার মধ্য উদমারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভাড়াটিয়া শিক্ষক দিয়ে রাতের বেলায় চলছে বিদ্যালয়ের ক্লাশ। যার অন্তরালে রয়েছে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আনোয়ার হোসেন ও সহকারী শিক্ষক মোঃ মজিবুর রহমান। তারা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নানা প্রলোভন ও চাপের মধ্যে ফেলে রাতের বেলায় প্রাইভেট টিউশনি ও কোচিংয়ে যেতে বাধ্য করায় শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষ বিমুখ হয়ে পড়ছে দিন দিন। স্যারদের কোচিং বা প্রাইভেটে না গেলে শ্রেণিকক্ষে নানা কটুক্তি করারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই সঙ্গে কোচিং ব্যবসায় জড়িত কিছু শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের কম সময় দিচ্ছেন মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই কোচিং থেকেই প্রশ্নফাঁস করার অভিযোগ উঠে।

সরেজমিনে গেলে দেখাযায়, ভবনের ২য় তলায় প্রতিটি ক্লাশ রুম ও অফিস কক্ষ খোলা রয়েছে। তিনটি শ্রেনী কক্ষে ৩য় শ্রেণী, ৪র্থ শ্রেণী ও ৫ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ভাড়াটিয়া শিক্ষক দ্বারা প্রাইভেট পড়াচ্ছেন এবং সহকারী শিক্ষক মোঃ মজিবুর রহমানকে ও প্রাইভেট পড়াতে দেখা যায়। এব্যাপারে জানতে চাইলে মজিবুর রহমান কোন জবাব নাে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যান। এই সময় অত্র প্রতিষ্ঠানে তিনটি ক্লাশে শতাধিক ছাত্র-ছাত্রি উপস্থিত ছিলেন ও সহকারী শিক্ষক মজিবুর রহমান ছাড়াও ভাড়াটিয়া আরো ৩জন শিক্ষক উপস্থিত ছিল।

ছাত্র-ছাত্রিদের সাথে কথা বলে জানাযায়, সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত পড়ানো হয়। তারা প্রতি বিষয়ে ৩ থেকে ৫ শত টাকা করে প্রাইভেট পড়ছেন এবং তাদের সাথে থাকা গাইড বই কেনার জন্য বাধ্য করছেন ঐ স্কুলের প্রধান শিক্ষক। ভাড়াটিয়া শিক্ষকদের সাথে কথা বলে জানাযায়, প্রধান শিক্ষক আনোয়ার স্যার এর অনুমতি নিয়ে নিয়মিত এ প্রাইভেট পড়াচ্ছি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আনোয়ার হোসেন এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের লেখা পড়ার উন্নতি করতে হলে প্রাইভেট পড়তে হবে এতে সাংবাদিকের মাথাব্যাথা কেন। দিনে পড়াই অথবা রাতে পড়াই তাতে আপনারা দেখার কে? আমি সভাপতির অনুমতিক্রমেই পড়াচ্ছি।

অত্র প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বরত সহকারী শিক্ষা অফিসার মজিবুর রহমান বলেন, মধ্য উদমারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাইভেট পড়ানোর ব্যাপারে আমি জানি তবে পড়ানোর বিপরিতে কোন টাকা নিতে পারবেনা। যদি টাকা নিয়ে থাকে তাহলে সরকারী বিধি মোতাবেক অপরাধ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিল্পীরানী রায় বলেন, কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রাইভেট কোচিং করানো নিষেধ যদি করে থাকে তাহলে আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।