শেখ হাসিনা মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্যই কাজ করে যাচ্ছেন-এনামুল হক শামীম

17
SHARE

মোঃ রোমান আকন্দ, শরীয়তপুর: আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম বলেছেন, মানুষের কল্যাণ করাই হচ্ছে রাজনীতির মুলমন্ত্র। গরীব-দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্যই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাতদিন কাজ করে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে একটি মানুষও না খেয়ে মারা যায় না। দেশে মঙ্গা থাকে না। নিজস্ব অর্থায়নের পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়। দেশের সার্বিক উন্নয়ন চাইলে আগামীতে নৌকা মার্কায় ভোট দিন। উন্নয়নের গতিধারা বজায় রাখুন। শনিবার দুপুরে শামীমের মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত আশ্রাফুন্নেছা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সখিপুরের ৯টি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে শীতার্থ মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, সখিপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির মোল্যা, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট আব্দুল আউয়াল, জহির সিকদার, ইউপি চেয়ারম্যান জিতু মিয়া বেপারী, কামরুজ্জামান মানিক সরদার, জসিম উদ্দিন মাদবর, জেলা পরিষদের সদস্য আনোয়ার হোসেন বালা ও কহিনুর সুলতানা দোলা, জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার আহমেদ তকী, সেকেন্দার মোল্লা, রুস্তম মোল্লা, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক নুর এ আলম আশিক, উপ-বিজ্ঞান সম্পাদক ইকবাল হোসেন সিপন, সখিপুরের সভাপতি রাসেল আহম্মেদ পলাশ প্রমূখ।
এনামুল হক শামীম আরও বলেন, আওয়ামী লীগের আমলে হাওয়া ভবন সৃষ্টি হয় না। মানুষের জন্য রাজনীতি করি। কিভাবে দেশের মানুষ ভাল থাকবে সেই চিন্তা করি। নিজেরা কি পেলাম সেদিকে তাকাই না। আমাদের আদর্শ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি সারাজীবন মানুষের সেবায় কাজ করেছেন। তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাও একই পথ অনুসরণ করে মানুষের সেবা করে চলেছেন। তিনি বলেন, যখন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা থাকে, তখন উত্তরাঞ্চল থেকে মঙ্গা দুর হয়। মানুষের কর্মসংস্থান হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতার পরিমাণ বাড়ে। দুঃস্থরা ভাতা পায়। বিধবাদের ভাতা দেওয়া হয়। প্রতিবন্ধীদের সুযোগ সুবিধাসহ চাকুরি ও ভাতা দেওয়া হয়। শীর্তার্থ হয়ে গরম কাপড়ের অভাবে কেউ মারা যায় না।
সরকারের পাশাপাশি গরীব-দুঃখীদের সেবায় সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, সরকারের একার পক্ষে সবকিছু করা সম্ভব নয়। আমাদের সমাজে যারা বিত্তবান আছেন, তারা যার যার অবস্থান থেকে মানুষের কল্যাণে এগিয়ে আসবেন। সকলে মিলে আমরা সমাজটাকে বদলে দিতে পারি।