সিলেটে প্রথম দিন আয়ারল্যান্ডের

নিজেকে প্রমাণের আসল জায়গা প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট। এখানে ভালো করেই টোকা দেয়া যায় জাতীয় দলের দরজায়। সিমি সিং আর আন্দ্রে ম্যাকব্রাইন সুযোগটা কাজে লাগালেন দারুণভাবে। সিলেটে এই দুজনের সেঞ্চুরি আর ফিফটিতে আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলের বড় সংগ্রহ। ২৫৫ রান বড় স্কোর হয়ে যাচ্ছে সিলেটের উইকেটের আচরণে। এখানকার উইকেট ব্যাটসম্যানদের চেয়ে বোলারদের দিকেই হাত বাড়ায় বেশি। সদ্য বাংলাদেশ-আফগানিস্তান যুব দলের সিরিজই এর বড় প্রমাণ। সিলেটের মাঠ, উইকেটের সঙ্গে সিমি সিং আর ম্যাকব্রাইনের পরিচয় চার দিনের। এতেই যেন সিলেটকে নিজেদের হোমগ্রাউন্ড বানিয়ে ফেলেছেন দুই আইরিশ। অথচ জাকির হাসান সিলেটেরই ছেলে। এখানকার মাটি, ঘাস তার ভালোই চেনা-জানা। পরিচিত কন্ডিশনে নিজেকে প্রমাণে আরেকবার ব্যর্থ জাকির। দিনের শেষে আউট হয়ে ফিরেছেন এক রান করে। বাকি সময়টা অবশ্য সাদমান ইসলামকে নিয়ে ক্রিজে নির্বিঘ্নেই কাটিয়েছেন বাংলাদেশ ‘এ’ দলের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। সাদমান ২২ আর শান্ত ১৫ রান নিয়ে আজ দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন। লক্ষ্য থাকবে আয়ারল্যান্ডের প্রথম ইনিংসের ভালো জবাব দেয়া। কাল দিনের শুরুটা অবশ্য বাংলাদেশেরই ছিল। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা আয়ারল্যান্ড ২৯ রান তুলতেই হারিয়ে বসে ৩ উইকেট। জেমস শ্যাননের (০) স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়ে শুরু করেন পেসার ইবাদত হোসেন। ১৮ রান করা আরেক ওপেনার জ্যাক টেক্টরকে বোল্ড করেন সানজামুল। এরপর আয়ারল্যান্ড ব্যাটিংয়ের মূল ভরসা অধিনায়ক আন্দ্রে বালবার্নিও ১০ রানে ফিরে যান মেহেদী হাসানের বলে সাদমানকে ক্যাচ দিয়ে। ২৯ রানে ৩ উইকেট হারানো আয়ারল্যান্ডকে টানার দায়িত্বটা নেন সিমি সিং। প্রতিরোধ গড়ার কাজে শুরুতে সঙ্গী পেয়ে যান সিন টেরিকে। চতুর্থ উইকেটে দুজনের ৭৯ রানের জুটিতে দিক ফিরে পায় সফরকারীরা। লাঞ্চের পর আরেকটা ছোটখাটো ধস আয়ারল্যান্ডের। কামরুল ইসলাম রাব্বি আর জুবায়ের হোসেন লিখন দ্রুত চার উইকেট তুলে আবারো চাপে ফেলেন সফরকারী দলকে। ১৬৯ রানে ৮ উইকেট হারানো দল ২৫৫ পর্যন্ত যায় কীভাবে সেটা একটা প্রশ্ন হতে পারে। তবে এই প্রশ্নের কোনো উত্তর নেই বাংলাদেশ ‘এ’ দলের অস্ট্রেলিয়ান কোচ সায়মন হেলমটের কাছে-আয়ারল্যান্ডের আসলে দু’শ রানের মধ্যেই আটকে যাওয়ার কথা। শেষদিকে ছেলেটা এমনভাবে ব্যাটিং করলো, যা ছিল অবিশ্বাস্য। অপ্রত্যাশিত এই ইনিংসে পঞ্চাশ রানের মতো বেশি করেছে তারা। তবে আমাদের ব্যাটসম্যানরাও প্রস্তুত আছে জবাব দিতে। বাংলাদেশ কোচ যে ছেলেটার কথা বলছেন তিনি আন্দ্রে ম্যাকব্রাইন। বোলার হিসেবেই তার পরিচিতি। কিন্তু কাল যেন বিনোদন হিসেবে ব্যাটিংকেই বেছে নিলেন। দশ নম্বরে নেমে যা করলেন তাতে শুধু মুগ্ধতাই ছড়িয়ে পড়েছে সবার মাঝে। ৭৫ মিনিট উইকেটে থেকে ৬২ বলে করেছেন ৫৭ রান! ম্যাকব্রাইনের ইনিংসে ছিল আট বাউন্ডারি। আয়ারল্যান্ডের আসল হিরো সিমি সিং আউট হওয়ার পরও শেষ উইকেটে নাথান স্মিথকে নিয়ে জমা করেন ৩৮ রান। আয়ারল্যান্ড ব্যাটিংয়ে এর আগের শো অবশ্য ভারতীয় বংশোদ্ভূত সিমি সিংয়ের। শুরুর দিকে বিপর্যয়ে পড়া দলকে একাই টেনেছেন। ২২২ মিনিট উইকেটে কাটিয়ে পেয়েছেন প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ইনিংসের দেখা। ১৫৯ বলে ১২১ রান করে থামেন মেহেদী হাসানের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে। ১০ বাউন্ডারি আর চার ছক্কায় সাজানো তার এই ইনিংস আয়ারল্যান্ডকে ভালো কিছুর স্বপ্ন দেখাচ্ছে ম্যাচে।