এমন স্বভাব আপনার প্রেমিকেরও আছে?

বিশ্বাস থাকা ভালো কথা। কিন্তু অন্ধ বিশ্বাস থাকা মোটেও ভালো নয়। আর প্রেমের ক্ষেত্রে এই ভুলটি করে ফেলেন বেশিরভাগ মানুষ। মনের মানুষ খুঁজে পাওয়ার আনন্দে এতটাই বিভোর হয়ে যান যে মুখোশের আড়ালে আসল চেহারাটাই অদেখা থেকে যায়।

আর যখন তা প্রকাশ্যে আসে আফসোস ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। তাই আগে থেকে সতর্ক হোন। জেনে নিন কোনো ধরনের পুরুষরা সবচেয়ে বেশি প্রতারণা করে থাকে।

১. যে ছেলেরা সব সময় মায়ের আঁচল ধরে ঘুরে বেড়ায় সেসব ছেলে যেমন বিপজ্জনক, তেমনি যে ছেলেরা নিজের মাকে সম্মান দিতে জানে না তারাও বিপজ্জনক। নিজের মাকে সম্মান দিতে না জানলে অন্য মেয়েকে কিভাবে সম্মান দেবে, ভালোবাসবে?

২. পুরুষের মধ্যে একটু রহস্য থাকা ভালো। সেটাই মেয়েদের সবচেয়ে বেশি আকর্ষণ করে। কিন্তু সম্পর্কের পথে কিছুটা এগিয়ে যাওয়ার পরও যদি দেখেন সেই পুরুষ আপনাকে খোলসা করে মনের কথা বলে না, তাহলেই বুঝবেন বিপদ।

৩. বেশিরভাগ ছেলেদেরই একটু ‘ফ্লার্ট’ করা অভ্যাস থাকে। একটা সময় পর্যন্ত এই স্বভাব বেশ ভালোই লাগে মেয়েদের। সম্পর্ক গভীর থেকে গভীরতর হলে তা আর ভালো লাগে না। যদি মনের টান না তৈরি হয় তাহলে সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসাই ভালো।

৪. যে পুরুষের কথার দাম নেই তার বিশ্বাসযোগ্যতাও নেই। আপনাকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করানোর পর যদি প্রেমিক বলে সে আসতে পারছে না, তাহলে বুঝবেন আপনাকে একেবারেই গুরুত্ব দেয়নি সে এবং এই মুহূর্তে আপনার থেকে বেশি ভালো ‘অপশন’ (কাউকে) পেয়ে গেছে।

৫. অতিরিক্ত কর্তৃত্ব ফলানো প্রেমিকও ঠিক নয়। আপনি কোথায় আছেন, কেন আছেন, ওই বন্ধুর সঙ্গে কেন মিশছেন- এসব প্রশ্ন যখনই কোনো সম্পর্কে ওঠে দূরত্ব বাড়তে শুরু করে। এই দূরত্বই জন্ম দেয় পরকীয়ার, ভেঙে যায় বিশ্বাস।

৬. যে পুরুষেরা নিজের সম্পর্ক গোপন রাখতে চায় তাদের উপর বিশ্বাস ভেবেচিন্তে করবেন। কোনো নারীকে সত্যিই যদি কোনো পুরুষ ভালোবেসে থাকেন, তাহলে সে কথা প্রকাশ করতে কখনো তার দ্বিধা হয় না। দ্বিধা তখনই আসে যখন অবিশ্বাস থাকে।

সর্বোপরি, প্রেমে পড়া ভালো কথা, তবে পছন্দের মানুষটিকে অবশ্যই যাচাই করে নেওয়া প্রয়োজন। সংবাদ প্রতিদিনের খবরে বলা হয়, বিশ্বাস থাকলে তবেই সম্পর্ক টিকবে। সব ভালো হলে শেষটা ভালোই হবে।