রেইন ট্রি ধর্ষণ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়েছে

রাজধানীর বনানীর রেইন ট্রি হোটেলে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে ১৬ অক্টোবর ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য থাকলেও সময়ের আবেদন করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

সময় আবেদনে তারা বলেন, অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিভিশন করা হবে। এজন্য মামলার সার্টিফায়েড কপি না পাওয়ায় আদালতের কাছে সময়ের আবেদন করেন তারা।

শুনানি শেষে ঢাকার দুই নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জয়শ্রী সমাদ্দারের আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ১৬ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

এর আগে গত ১৩ জুলাই ঢাকার দুই নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক শফিউল আজম আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার কার্য শুরু করেন।

গত ২৮ মার্চ বনানীর ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে জন্মদিনের পার্টির কথা বলে ডেকে নিয়ে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। ঘটনার প্রায় ৪০ দিন পর ৬ মে সন্ধ্যায় বনানী থানায় ধর্ষণের অভিযোগে সাফাতসহ পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করা হয়।

গত ৮ জুন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম দোলোয়ার হোসেনের আদালতে সাফাতসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক ইসমত আরা এমি। অভিযোগপত্রে ৪৭ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

মামলার অভিযুক্ত পাঁচজন আসামি হলেন- আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ, তার বন্ধু সাদমান সাকিফ, নাঈম আশরাফ, সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলী। তারা সবাই দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।