চার সেঞ্চুরিতে রান-উৎসব

আরো একবার ব্যাট হাতে রান-উৎসব করলো প্রোটিয়ারা। আর গর্বের একাধিক রেকর্ডে নাম উঠলো দক্ষিণ আফ্রিকার। গতকাল বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের  প্রথম ইনিংসে ৫৭৩/৪ সংগ্রহ নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্লুমফন্টেইনে প্রথম ইনিংসে প্রোটিয়ারা মোকাবিলা করে কাঁটায় কাঁটায় ১২০ ওভার। ইনিংস শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার রানের গড় ছিল ওভারপ্রতি ৪.৭৮। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টেস্টে কোনো দলের ৫০০-ঊর্ধ্ব রানের ইনিংসে এটি দ্বিতীয় সেরা রানের গড়। আর টেস্ট ইতিহাসে দশম সেরা। ব্লুমফন্টেইনের ম্যাঙ্গায়ুং ওভাল মাঠে গতকাল ব্যক্তিগত ১৩৫ রানে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি। আর উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক অপরাজিত ছিলেন ২৮ রানে।  এর আগে ব্যক্তিগত ১৩২ রানে হাশিম আমলাকে সাজঘরে ফেরান টাইগার পেসার শুভাশিষ রায়। ইনিংসে এটি তার তৃতীয় শিকার। লাঞ্চের পর প্রথম ওভারের শেষ বলে আমলাকে সরাসরি বোল্ড করেন শুভাশিষ। এতে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫৩৫/৪-এ। চতুর্থ উইকেটে আমলা ও ডু প্লেসি গড়েন ২৪৭ রানের জুটি। ব্লুমফন্টেইন টেস্টের প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ফাফ ডু প্লেসি। ইনিংসে প্রোটিয়াদের ব্যাটিংক্রমের শীর্ষ পাঁচ খেলোয়াড়ের চারজনই দেখালেন সেঞ্চুরির কৃতিত্ব। এতে শনিবার ৫৩০/৩ সংগ্রহ নিয়ে ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের মধ্যাহ্ন বিরতিতে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। এ সময় হাশিম আমলা ১৩২ ও ডু প্লেসি অপরাজিত ছিলেন ১২০ রানে। টেস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে ইনিংসে চার সেঞ্চুরির ঘটনা দেখা গেল এ নিয়ে চারবার।
বৃষ্টির কারণে ব্লুমফন্টেইনে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু হয় দেড় ঘণ্টা দেরিতে। বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় শুরু হয় ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের খেলা। এতে এক ঘণ্টা এগিয়ে নেয়া হয় লাঞ্চ। আগের দিন ৮৯ রানে অপরাজিত ছিলেন হাশিম আমলা। গতকাল তিনি সময় নেন কমই। দিনের ষষ্ঠ ওভারে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি। ক্যারিয়ারে হাশিম আমলার এটি ২৮তম সেঞ্চুরি। এতে তিনি ছাড়িয়ে গেলেন গ্রায়েম স্মিথকে। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাট হাতে টেস্টে দ্বিতীয় সর্বাধিক সেঞ্চুরির রেকর্ডটি এখন হাশিম আমলার। টেস্টে সর্বাধিক ৪৫টি সেঞ্চুরি রয়েছে সাবেক প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান জ্যাক ক্যালিসের। বাংলাদেশের বিপক্ষে চলতি সিরিজে আমলার এটি টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। পচেফস্ট্রমে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে আমলার ব্যাট থেকে আসে ১৩৭ রান। ব্লুমফন্টেইনে প্রথম দিন শেষে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ছিল ৪২৮/৩। এইডেন মার্করাম ক্যারিয়ারের মাত্র দ্বিতীয় টেস্টে প্রথম শতক তুলে নিয়ে আউট হন ১৪৩ রানে। অপর ওপেনার এলগার খেলেন ১১৩ রানের ইনিংস। সিরিজে টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরির কৃতিত্ব এলগারেরও। পচেফস্ট্রমের প্রথম ইনিংসে ১ রানের জন্য ডবল সেঞ্চুরি মিস করেন এলগার। ব্লুমফন্টেইনে ম্যাচের প্রথম দিনে ডিন এলগার ও টেম্বা বাভুমাকে সাজঘরে ফেরান টাইগার পেসার শুভাশিষ রায়। আর এইডেন মার্করামকে সরাসরি বোল্ড করেন অপর পেসার রুবেল হোসেন। ওপেনিংয়ে ২৪৩ রানের জুটি গড়েন এলগার-মার্করাম। তবে বাভুমার বিদায়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৮৮/৩-এ। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস এগিয়ে নেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান হাশিম আমলা আর অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি।  চতুর্থ উইকেটে আমলা-ডু প্লেস গড়েন ২৪৭ রানের জুটি।  বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্টের এক ইনিংসে দুটি ২০০ রানের জুটির ঘটনা দেখা গেল দ্বিতীয়বার। পচেফস্ট্রমে সিরিজের প্রথম টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৪৯৬/৩ সংগ্রহ নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকা। আর ম্যাচ শেষে প্রোটিয়ারা দেখে ৩৩৩ রানের জয়।