অন্যরকম

৯৬ বছর বয়সী বৃদ্ধা পরীক্ষায় পেলেন ৯৮ শতাংশ নম্বর

বয়স কেবলই যে একটা সংখ্যা আর শেখার কোনও বয়স নেই তার প্রমাণ দিলেন ৯৬ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা। ৯৬ বছরে পড়াশোনা শুরু করে কার্তিয়ানি আম্মা নামে এক বৃদ্ধা ৯৮ শতাংশ নম্বর পেয়ে তাক লাগালেন।

৯৬ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধার পুরো নাম কার্তিয়ানি আম্মা কৃষ্ণাপিল্লা। তিনি ভারতের কেরালা রাজ্যের মুট্টম গ্রামের বাসিন্দা। স্থানীয় মন্দিরগুলিতে ধোয়া-মোছার কাজ করেন। ছোটবেলায় কখনও স্কুলে যাননি। সরকারি উদ্যোগে সম্প্রতি এমন কৃতিত্ব অর্জন করতে পেরেছেন তিনি।

এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আম্মা বলেন, আমি ছোট ছোট বাচ্চাদের পড়তে দেখে উৎসাহিত হই। তারা যখন আমার ইচ্ছার কথা জানতে পারে তারা আমায় পড়তে বলে আর আমিও তখন রাজি হই।

এছাড়া নিরক্ষরতা দূরীকরণে চলতি বছর প্রজাতন্ত্র দিবসে ‘অক্ষরলক্ষ্যম’ প্রকল্প চালু করে ভারতের কেরালা সরকার, যাতে রাজ্যে সাক্ষরতার হার ১০০ শতাংশে পৌঁছায়। প্রথম দফায় ৪৭ হাজার ২৪১ জনকে নিয়ে ক্লাস শুরু হয়। পড়তে, লিখতে এবং সাধারণ গণিত শেখানো হয় সেখানে। পড়া শেষ হলে, পরীক্ষার আয়োজন করা হয় চতুর্থ, সপ্তম, দশম, একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য।

চতুর্থ শ্রেণিতে পরীক্ষায় বসেন কার্তিয়ানি আম্মা। তাতে ১০০-র মধ্যে ৯৮ পেয়ে প্রথম হয়েছেন তিনি। ১ নভেম্বর তাঁর হাতে মেরিট সার্টিফিকেট তুলে দেবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন।

আম্মা জানান, ভাল নম্বর পেয়েছি। তাতেই খুশি আমি। এখন লিখতে পড়তে পারছি। হিসাব করছি নিজে নিজে। দুই নাতনি, ১২ বছরের অপর্ণা এবং ৯ বছরের অঞ্জনা তাঁকে পড়াশোনায় সাহায্য করেছে বলে জানিয়েছেন। কৃতিত্ব দিয়েছেন মেয়ে আম্মিনিয়াম্মাকেও। ২০১৬ সালে ৫১ বছরে মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ হন আম্মিনিয়াম্মা। তাঁকে দেখেই নাকি অনুপ্রাণিত হন কার্তিয়ানি আম্মা।

তিনি আরও বলেন, আমার যখন পড়াশুনা করার বয়স ছিল আমি করতে পারিনি। কিন্তু এখন সে সুযোগ পেয়ে আমি খুশী।

তিনি এনডিটিভিকে আরও বলেন, আমি এখন কম্পিউটার চালনাও শিখতে চাই। তাহলে আমি আমার অবসর সময়ে কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারবো। সূত্র: এনডিটিভি/আনন্দবাজার।