শিক্ষাঙ্গন

১০ মাসেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি অনুষদ-বিভাগ কমিটি, কার্যক্রম নেই হল কমিটির!

হাসান মাহমুদ,রাবি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগের কার্যক্রমকে ‘গতিশীল’ করতে প্রথমবারের মত গঠিত হয় অনুষদ ও বিভাগ কমিটি। তবে গঠন হওয়ার দশমাস পেরিয়ে গেলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ হয়নি এই দুই কমিটি। এছাড়া হল সম্মেলন ও নতুন কমিটি না হওয়ায় ছাত্রলীগের হল ইউনিটের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা।

তবে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলছেন, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যস্ততার কারণে কমিটি দুটি করা সম্ভব হয়নি। খুব দ্রুতই সিভি সংগ্রহ শেষ করে অনুষদ-বিভাগ ও আবাসিক হল কমিটি গঠন করা হবে।

এদিকে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়েও (রুয়েট) ছাত্রলীগের হল কমিটি নেই। এতে করে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছেন হল ইউনিটের কর্মীরা। অনেকেই শিক্ষাজীবন শেষ করে ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে গেছেন। আর যারা ক্যাম্পাসে আছেন তারাও ক্যাম্পাস রাজনীতিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন।

রুয়েটের ছাত্রলীগরে একাধিক নেতাকর্মী জানান, হল কমিটি না থাকায় নতুনভাবে কর্মী তৈরি হচ্ছে না। আবার যারা সক্রিয় ছিলেন তারাও হতাশ হয়ে পড়েছে। এছাড়া অনেকেই পদ-পদবী ছাড়াই ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে গেছেন। জানা গেছে, ২০১২ সালে রুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সকল হল ইউনিট কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

রুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি নাঈম রহমান নিবিড় বলেন, আমাদের হলগুলোতে শিক্ষার্থীদের হল সংযুক্ত নির্ধারিত থাকে না। ৬ থেকে ৮ মাস পরপর হল এ্যাটাচমেন্ট পরিবর্তন হয়। গত ডিসেম্বর মাসে নতুন করে হল পরিবর্তন হয়েছে। ক্যাম্পাস বন্ধ আছে। ১২ জানুয়ারি ক্যাম্পাস খুললে দুই সপ্তাহের মধ্যে সিভি সংগ্রহ শেষে সম্মেলনের মাধ্যমে হল কমিটি ঘোষণা করা হবে।

রুয়েট ছাত্রলীগের গত কমিটির সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান হিমেল বলেন, আমাদের সময়েও হল কমিটি দেয়া সম্ভব হয়নি। কমিটি দেয়ার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ আছে। কারণ শিক্ষার্থীদের হল এ্যাটাচমেন্ট কয়েক মাস পরে পরিবর্তন হয়। তাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সহযোগিতা করলে রুয়েট ছাত্রলীগের পক্ষে কমিটি দেয়া সহজ হবে।

রাবি ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি আইন, কলা, ব্যবসায় শিক্ষা, প্রকৌশল ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদসহ ১৩টি বিভাগের কমিটি ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। বাদ রয়েছে চারটি অনুষদ ও ৪৪টি বিভাগের কমিটি গঠন।

রাবির আবাসিক হলের ছাত্রলীগের একাধিক কর্মী বলেন, ‘এক বছর মেয়াদী হল কমিটির মেয়াদ অনেক আগে শেষ হয়েছে। হল শাখাগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের অধিকাংশের পড়াশোনা শেষ। অনেকে ক্যাম্পাস ছেড়েছেন আবার কেউ চাকরিতে যোগদান করেছে। যারা আছেন তাদের অধিকাংশই বিশ্ববিদ্যালয় শাখার মূল কমিটিতে পদ পেয়েছেন। ফলে হলগুলোতে ছাত্রলীগের কার্যক্রমে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

সবশেষ ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান মাঠে আটটি হল রাবি শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।’ এছাড়া দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী হলগুলোতেও কমিটি নেই। ফলে ছাত্রী হলে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম নেই। এতে করে সংগঠনে নারী কর্মীর সংকটও রয়েছে।

২০১৬ সালের ৭ ও ৮ ডিসেম্বর রুয়েট ও রাবি ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। পরে ১১ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ রুয়েটে নাঈম রহমান নিবিড়কে সভাপতি ও মাহফুজুর রহমান তপুকে সাধারণ সম্পাদক এবং রাবিতে গোলাম কিবরিয়াকে সভাপতি ও ফয়সাল আহমেদ রুনুকে সাধারণ সম্পাদক করে এক বছরের জন্য কমিটি ঘোষণা করে। ইতোমধ্যে রুয়েট ও রাবি ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদও শেষ হয়েছে।