আর্ন্তজাতিক

সৌদি ও ইউএই’র কাছে অস্ত্র বিক্রির সিদ্ধান্ত ট্রাম্প প্রশাসনের

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন কংগ্রেসকে এড়িয়ে শুক্রবার সৌদি আরব এবং অন্যান্য আরব মিত্র দেশের কাছে ৮ শ’ ১০ কোটি ডলার মূল্যের অস্ত্র বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইরানের হুমকির কথা উল্লেখ করে তারা এসব অস্ত্র বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়।
এদিকে ট্রাম্প প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তে বিক্ষুব্ধ আইনপ্রণেতাদের আশঙ্কা এসব অস্ত্র ইয়েমেনে বেসামরিক নাগরিকদের হত্যায় ব্যবহার করা হতে পারে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, প্রশাসন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব-আমিরাত ও জর্ডানের কাছে ২২ ধরনের অস্ত্র হস্তান্তরের অনুমোদনের ক্ষেত্রে কংগ্রেসের প্রয়োজনীয় যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজনীয়তাকে এড়িয়ে যাবে। কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, অস্ত্র বিক্রির নিষেধাজ্ঞা আরব মিত্রদের অভিযান সক্ষমতাকে প্রভাবিত করবে ।

এক বিবৃতিতে পম্পেও আরো বলেন, এসব অস্ত্র বিক্রির উদ্দেশ্য হচ্ছে ইরানের আগ্রাসন ঠেকানো এবং অংশীদার দেশগুলোর আত্ম-প্রতিরক্ষা সক্ষমতা গড়ে তোলা।

সিনেটর রবার্ট মেনান্দাজ শুক্রবার এসব অস্ত্র বিক্রির সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে আশংকা প্রকাশ করেন যে অস্ত্রগুলো ইয়েমেনের মানবিক সংকটের আরো অবনতি ঘটাতে পারে। সেখানে মার্কিন মিত্র দেশগুলো ব্যাপক অভিযান চালাচ্ছে। তিনি তার ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব-আমিরাতে এসব অস্ত্রের চালান বন্ধের চেষ্টা করেন।
সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির শীর্ষ ডেমোক্রেট মেনান্দাজ এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমি হতাশ হয়েছি কিন্তু অবাক হইনি। কারণ ট্রাম্প প্রশাসন আরো একবার আমাদের দীর্ঘ মেয়াদি জাতীয় নিরাপত্তার বিভিন্ন স্বার্থ বা মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়াতে ব্যর্থ হয়েছে।’

তিনি বলেন, ট্রাম্প প্রশাসন এ ব্যাপারে জরুরি প্রয়োজনীয়তার আইনগত কোন ব্যাখ্যা দিতে পারেনি। তিনি এ সিদ্ধান্ত মোকাবেলায় আইনপ্রনেতাদের সাথে কাজ করার অঙ্গীকার করেন।

মেনান্দাজ বলেন, ‘এটার ওপর নির্ভর করছে লাখ লাখ মানুষের জীবন।’

সূত্র : এএফপি