আজকের সেরা সংবাদ

‘সরকারের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করবে বিএনপি’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘সরকার যত ষড়যন্ত্রই করুক সব ষড়যন্ত্রকে বিএনপির পক্ষ থেকে মোকাবিলা করা হবে। জনবিচ্ছিন্ন সরকারের সব ষড়যন্ত্র রুখে দেবে জনগণ।’

আজ সোমবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মওদুদ আহমদ। সরকার একটি ‘ফরমায়েশি আদেশে’র মাধ্যমে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও বিএনপি নেতাদের ফাঁসাতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মওদুদ আহমদ।

‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর বিএনপি নেতৃত্ব সংকটে পড়বে’ সম্প্রতি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে মওদুদ বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের এহেন বক্তব্যের পর যেকোনো ব্যক্তি ধারণা করতে পারেন যে মামলায় রায় কী হতে পারে। এ থেকেই বোঝা যায়- আদালতের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ কতটা। অতএব আমরাও প্রস্তুত। মিথ্যা মামলার সব ষড়যন্ত্র এবার রুখে দেবে বিএনপি।’

মওদুদ আহমদ বলেন, ‘বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন বক্তব্য বিবৃতির মাধ্যমে তারেক রহমান এবং বিএনপিকে এ মামলায় জড়ানোর জন্য তাদের নীল নকশার ইঙ্গিত দিতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় মুফতি হান্নানকে দীর্ঘদিন রিমান্ডে রেখে নির্মম নির্যাতন করে দ্বিতীয় বারের মতো তথাকথিত স্বীকারোক্তিতে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয় যা বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় বার ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি নেওয়ার বিরল ঘটনা। এ ক্ষেত্রে আমরা বলতে চাই মুফতি হান্নান অবশ্য ১৬৪ ধারার দ্বিতীয় জবানবন্দিতেও তারেক রহমানের সরাসরি সম্পৃক্ততার কথা বলে নাই।’

এ সময় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘মুফতি হান্নান আদালতে বলে গেছেন নির্যাতনের মাধ্যমে তার কাছ থেকে স্বীকারোক্তি নেওয়া হয়েছে। এরপর তাকে তাড়াহুড়ো করে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে। যেন সে আর এ বিষয়ে কথা বলতে না পারে। এটা অত্যন্ত জঘন্যতম কাজ। এই মামলায় যদি তারেক রহমান, লুৎফুজ্জামান বাবর, আব্দুস সালাম পিন্টুসহ যারা আছে তাদের সাজা দেওয়া হয় তা হবে একটি ফরমায়েশি রায়। এ মামলায় সাজা হওয়ার কোনো উপাত্তই নেই। তারপরও যদি অন্যায়ভাবে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কাউকে সাজা দেওয়া হয় সেটি হবে ন্যায়বিচার পরিপন্থী। জনগণ সেই সাজার রায়কে প্রত্যাখ্যান করবে ঘৃণাভরে।’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার, রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড.আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন উপস্থিত ছিলেন।