খেলাধুলা

রাতে মুখোমুখি বাংলাদেশ-আফগানিস্তান

ভারতের দেরাদুনে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ খেলতে চেয়েছিল আফগানিস্তান। কিন্তু হঠাৎ করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সিদ্ধান্ত নেয়, ওয়ানডে নয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে তারা। কারণ হল বাংলাদেশ ওয়ানডে অনেক খেলে। সেই তুলনায় টি-টোয়েন্টি কম খেলা হয়। আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এমন প্রস্তাবে রাজি হয়।

তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে আজ রোববার আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ভারতের দেরাদুনে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে আটটায়। যা সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি।

বিসিবি যখন আফগানিস্তানকে ওয়ানডের পরিবর্তে টি-টোয়েন্টি খেলার প্রস্তাব দেয় তখন হয়তো মনে মনে খুশিও হয়েছে আফগানরা। কারণ, টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে। সাম্প্রতিক সময়ে টি-টোয়েন্টিতে তাদের পারফরম্যান্সও ভালো। সবশেষ ফেব্রুয়ারিতে তারা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছে। তাদের মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান ও মুজিব উর রহমানরা বিভিন্ন দেশের টি-টোয়েন্টি লিগে খেলে বেড়াচ্ছে।

এই তিন স্পিনার নিয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই প্রত্যাশা করতেই পারে আফগানরা। তিনজন যে ইনিংসের মোট ওভারের অর্ধেকেরও বেশি করতে পারবে। ১২ ওভারে যদি কোন দলের ব্যাটসম্যানরা হাতখুলে ব্যাট করতে না পারে তাহলে টি-টোয়েন্টিতে আর কত রানই বা করতে পারবে? সেটার সাক্ষী হয়ে আছে শুক্রবার প্রস্তুতি ম্যাচটি। সেদিন বাংলাদেশ ২০ ওভারে করেছিল মাত্র ১৪৫ রান। আর সেটা আফগানিস্তান ‘এ’ দল তুলে নিয়েছে ১৭.২ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে।

তার উপর তাদের মোহাম্মদ শাহজাদের মতো হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান আছে। আছেন মোহাম্মদ নবীর মতো কার্যকরী অলরাউন্ডার। মোহাম্মদ রশিদ খানও শেষ দিকে ব্যাট চালাতে পারেন। আইপিএলে সেটার প্রমাণও দিয়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে টি-টোয়েন্টিতে আফগানিস্তান বলতে গেলে একটি পূর্ণাঙ্গ প্যাকেজ।

তবে তাদের রশিদ খান, নবী ও মুজিবদের সামলানোর মতো ব্যাটসম্যান অবশ্য রয়েছে বাংলাদেশের। তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান বহুদিন ধরে খেলছেন। তাদের সঙ্গে লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান ও মোসাদ্দেকদের মতো প্রতিভাবান তরুণরা আছেন। যাদের ব্যাট হাসলে প্রতিপক্ষ বোলারদের তুলোধুনো করে ছাড়তে পারেন। আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানদের বিভ্রান্ত করতে আছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তার ব্যাক-আপ হিসেবে আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাজমুল ইসলাম অপু। আর পেস আক্রমণে নেতৃত্ব দিতে আছেন রুবেল হোসেন, আবু হায়দার রনি ও আবুল হাসান রাজু।

শক্তিমত্তা ও অভিজ্ঞতায় বাংলাদেশ আফগানিস্তানের চেয়ে এগিয়ে থাকলেও র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে নবী-রশিদরা। টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা রয়েছে অষ্টম স্থানে। আর বাংলাদেশ রয়েছে দশম স্থানে। এর আগে আফগানিস্তানের সঙ্গে মাত্র একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। ২০১৪ সালের সেই ম্যাচে আফগানদের ৯ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এখন অবশ্য পরিস্থিতি পাল্টেছে।

ভারতের দেরাদুনের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেটে সামান্য ঘাষ আছে। তবে উইকেট স্লো। আফগানিস্তান যেহেতু স্পিন নির্ভর দল তাই আজকের ম্যাচের উইকেট যে স্পিনবান্ধব হবে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

তার আগে চলুন দেখে নিই আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের আজকের ম্যাচের একাদশ কেমন হতে পারে।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ : তামিম ইকবাল, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান, আবু হায়দার রনি, রুবেল হোসেন ও নাজমুল ইসলাম অপু।

আফগানিস্তানের সম্ভাব্য একাদশ : মোহাম্মদ শাহজাদ, আসগর স্টানিকজাই (অধিনায়ক), নাজীব তারাকাই, মোহাম্মদ নবী, নাজিবুল্লাহ জাদরান, শফিকুল্লাহ, শরাফুদ্দিন আশরাফ, গুলবাদিন নাঈব, রশিদ খান, আফতাব আলম ও মুজিব উর রহমান।