খেলাধুলা

যেখানে মেসির চেয়ে অনেক এগিয়ে রোনালদো

চ্যাম্পিয়ন্স লীগের রাজা কে? ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো নাকি লিওনেল মেসি? পরিসংখ্যান বিচারে জুভেন্টাসের পর্তুগিজ সুপারস্টার রোনালদোকে এগিয়ে রাখতে হবে। ক্লাব ফুটবলে ইউরোপ সেরার এই আসরে সর্বাধিক ১২৫ গোলের মালিক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন তারকা মেসির গোল ১০৮টি। আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগের নকআউট পর্বে মেসির চেয়ে অনেক বেশি সফল রোনালদো। শেষ ষোলো, কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনাল ও ফাইনাল মিলিয়ে রোনালদোর মোট গোল ৬৪টি। যেখানে মেসি পেয়েছেন ৪২ গোল। তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা বায়ার্ন মিউনিখের জার্মান তারকা টমাস মুলার করেছেন ২১ গোল।
বুধবার রাতে আয়াক্স আমস্টারডামের সঙ্গে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে জুভেন্টাস ড্র করে ১-১ গোলে।

জুভিদের হয়ে গোলটি করেন রোনালদো। এ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে ২১ ম্যাচে ২৪ গোল পেলেন এ পর্তুগিজ সুপার স্টার। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মেসি ও রিয়ালের সাবেক স্প্যানিয়ার্ড তারকা রাউল গঞ্জালেস ১০টি করে গোল করেছেন কোয়ার্টার ফাইনালে। একই দিন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে মাঠে নামেন মেসিও। ম্যাচে মেসির দল ১-০ গোলে জিতলেও জালের দিশা পাননি তিনি। দীর্ঘ ছয় বছর চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে গোলহীন বাঁ পায়ের জাদুকর। ১২ ম্যাচে প্রতিপক্ষের গোলমুখে ৫০টি শট নিয়েছেন মেসি। একটিকেও গোলে পরিণত করতে পারেননি। কোয়ার্টার ফাইনালে মেসি সর্বশেষ গোল পেয়েছিলেন ২০১৩ সালে প্যারিস সেন্ট জার্মেইর (পিএসজি) বিপক্ষে।
চলতি চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সবচেয়ে বেশি গোল (৮) মেসিরই (বায়ার্ন মিউনিখের রবার্ট লেভানদোস্কিরও ৮ গোল)। এর মধ্যে মেসির ৬ গোল গ্রুপ পর্বে। বাকি দুটি শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে অলিম্পিক লিঁওর বিপক্ষে। এবারের গ্রুপ পর্বে রোনালদোকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। ৬ ম্যাচে মাত্র একটি গোল করেন জুভি স্ট্রাইকার। কিন্তু নকআউট পর্বে ‘আসল’ রোনালদোকে দেখা গেছে। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে হ্যাটট্রিক করে জুভেন্টাসকে তিনি এনে দেন কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট। শেষ আটের প্রথম লেগেও গোল পেলেন। যে আয়াক্সের বিপক্ষে রোনালদো গোল করেছেন চ্যাম্পিয়ন্স লীগের নকআউট পর্বে সেই দলের মোট গোল কতটি জানেন? ৩১টি। শুধু আয়াক্স নয়, রোনালদোর সমান গোল করতে পারেনি লিভারপুল (৪৯), বরুশিয়া ডর্টমুন্ড (৩৮), পোর্তো (৩৮), ইন্টার মিলানের (৩৩) মতো চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয়ী দলও।