নির্বাচন

মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার আটক, ভোট বর্জন

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি ॥

মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার জিয়নপুর ২৭ নং ভোট কেন্দ্রে নৌকা প্রতিকে সিল মারার অভিযোগে কেন্দ্রটির সহকারী প্রিজাইর্ডি অফিসার আটক হয়েছে। রবিবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার জিয়নপুর খাঁ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে। আটক ওই কর্মকর্তার নাম রুহুল আমিন। তিনি দৌলতপুরের খোর্দ ছাতিয়ান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও দৌলতপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুল মোমিন জানান, ওই কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিড়ে নৌকা প্রতিকে ভোট দেওয়ার চেষ্টা করছিল। বিষয়টি কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে আসলে তারা তাকে আটক করে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানায়। পরে বিষয়টি পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের জানালে তাকে আটক করা হয়।

ভোট কারচুপির অভিযোগে ওই উপজেলার আওয়ামীলীগের দুই বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল কাদের ও আমিনুর রহমান ভোট বর্জন করেছেন। উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান ভোট বর্জনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এদিকে, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মত্ত সরকারী প্রাথমিক বালক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের ইভিএম মেশিনের যান্ত্রিক সমস্যা থাকার কারনে নির্ধারিত সময়ে ভোট গ্রহন শুরু হয়নি। পরে সেনা সদস্যরা মেশিনটি ঠিক করলে বেলা ১০টা ২০ মিনিট থেকে ভোট গ্রহন শুরু করা হয় বলে জানিয়েছেন, ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আবু বকর সিদ্দিক জানান।

এছাড়া মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আরো ৪/৫টি ভোট কেন্দ্রে ইইভএম মেশিন যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। পরে অবশ্য তা ঠিক করে ভোট গ্রহন শুরু করা হয়। মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন সরদার বলেন কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা ইভিএম মেশিন সঠিকভাবে অপারেটিং করতে না পারার কারণে কয়েকটি কারণে শুরুতে কিছুটা সমস্যা হয়েছিল।

তৃতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মানিকগঞ্জের সাতটি উপজেলায় নির্বাচন হচ্ছে। এর মধ্যে মানিকগঞ্জ সদর, সাটুরিয়া, শিবালয় এবং হরিরামপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। বাকি দৌলতপুর, ঘিওর এবং সিঙ্গাইর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সঙ্গে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।