খেলাধুলা

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে লিটনের দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি

এশিয়া কাপের ফাইনালের আগে বাজে পারফরম্যান্সের কারণে অনেক সমালোচনা শুনতে হয়েছে লিটন দাসকে। ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করে সেই সমালোচনার জবাব দেন এ ওপেনার। এশিয়া কাপ শেষে দেশে ফিরে কয়েক দিনের বিশ্রাম নিয়ে জাতীয় লিগে খেলতে নেমে ইতিহাস গড়েছেন লিটন।

বুধবার রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে ১৪২ বলে ২০৩ রানের দানবীয় ইনিংস খেলে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি করেন রংপুরের এ ওপেনার। জাতীয় লিগের প্রথম রাউন্ডে বিশ্রামে থাকা লিটন, দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলতে নেমে প্রথম ইনিংসে ফেরেন মাত্র ১৭ রানে। দল গুটিয়ে যায় ১৫১ রানে। জবাবে প্রথম ইনিংসে নাজমুল হোসেন শান্ত, মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিকীর সেঞ্চুরিতে ৯ উইকেট ৫৮৯ রানের পাহাড় গড়ে ইনিংস ঘোষণা করে রাজশাহী।

৪৩৮ রানে পিছিয়ে থেকে বুধবার তৃতীয় দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে রংপুর। ইনিংসের শুরু থেকেই ব্যাটিং তাণ্ডব শুরু করেন লিটন। উদ্বোধনীতে জাহিদ জাভেদকে সঙ্গে নিয়ে ৯৮ রানের জুটি গড়েন। ৩৫ রান করে জাহিদ আউট হয়েলে ব্যাটিং ঝড় চালিয়ে যান লিটন।

মাত্র ৪৪ বলে ফিফটি তুলে নেয়া লিটন, ৮১ বলে ১৬ চার ও ১ ছক্কায় সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। পরের ৫০ রান করতে বল খেলেন মাত্র ২৭টি। ডাবল সেঞ্চুরি করতে খেলেছেন মাত্র ১৪০ বল। সেঞ্চুরিকে ডাবলে রূপ দিতে লিটন খেলেছেন মাত্র ৫৯ বল।

আর এরই মধ্য দিয়ে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সবচেয়ে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়লেন লিটন। তবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন আফগানিস্তানের শফিকউল্লাহ শেনওয়ারি। তিনি ৮৯ বলে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন।

শুধু ডাবল সেঞ্চুরি করাই নয়, দ্বিতীয় উইকেটে মাহমুদুল হাসানকে সঙ্গে নিয়ে ২১৫ রানের জুটি গড়েন লিটন। তাইজুলের ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত হওয়ার আগে ১৪২ বল খেলে ৩২টি চার ও চারটি ছক্কায় ২০৩ রান করে ফেরেন জাতীয় দলের এই তারকা ব্যাটসম্যান। দিন শেষে ৭২ রানে অপরাজিত আছেন মাহমুদুল হাসান। তৃতীয় দিনের খেলা শেষে রংপুরের সংগ্রহ ২ উইকেট হারিয়ে ৩১৯ রান। এখনও ১১৯ রানে পিছিয়ে রয়েছে দলটি।