ধর্ম

পশ্চিম দিকে পা দিলে কী হয়?

সমাজে ধর্মীয় কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হয়ে থাকে। আসলে যার কোনো ভিত্তি নেই অথবা ইসলাম ওই বিষয়গুলো সমর্থনও করে না। কিন্তু না জানা থাকার কারণে সাধারণ মানুষ বিষয়গুলো নিয়ে ভুল করে থাকে। এরকম কয়েকটি বিষয়ে আজকের প্রশ্নোত্তর।

প্রশ্ন: হিন্দু ছেলে-মেয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলে, সে পিতা-মাতার সাথে খাওয়া দাওয়া ও তাদের সম্পদ ভোগ করতে পারবে কিনা?

উত্তর: অমুসলিম পিতা-মাতার সম্পদ থেকে মুসলিম সন্তানদের জীবিকা নির্বাহ অবৈধ নয়। তবে ইসলাম গ্রহণের কথা গোপন রাখা ঠিক হবে না। বিষয়টি প্রকাশ করে দেওয়া এবং সম্পূর্ণ ইসলামী জীবন-যাপন করা তার কর্তব্য। যদি ইসলাম ধর্ম গ্রহণের ফলে পিতা-মাতার কাছ থেকে কোনো সমস্যা দেখা না দেয়। তাহলে অন্য কোনো পথ অবলম্বন করবে। পরবর্তীতে সমস্যা কেটে গেলে পিতা-মাতা ও আত্মীয়-স্বজনের সাথে সাক্ষাৎ করতে পারবে। এমনকি প্রয়োজনে তাদের সেবা-যত্নও করতে পারবে।(মুসনাদে আহমদ,হাদিস:১৫৬৭৯; বাদায়েউস সানায়ে ৩/৪৪৯; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৬১৪;)

প্রশ্ন: পশ্চিম দিকে পা রাখা কি হারাম?

উত্তর: পশ্চিম দিকে পা রাখা হারাম নয়। কোনো কারণ ব্যতীত কিবলার দিকে পা রাখা মাকরুহ। কারণ এতে কিবলার আদব রক্ষা হয় না।(ফাতহুল কাদীর ১/৩৬৬; রদ্দুল মুহতার ১/৬৫৫; আলবাহরুর রায়েক ২/৩৩)

প্রশ্ন: বিষ, গলায় ফাঁস বা যেকোনো ভাবে আত্মহত্যা করলে সে কি জাহান্নামী হবে? সমাজে প্রচলিত আছে যে, এমন ব্যক্তি জাহান্নামী এবং এদের জন্য দোয়া করা অনুচিত বা হারাম।

উত্তর: আত্মহত্যা করা ব্যক্তি জান্নাতি নাকি জাহান্নামী এ ব্যাপারে কথা বলার অধিকার ইসলাম কাউকে দেয়নি। যদিও আত্মহত্যা করা কবিরা গুনাহ, অনেক ক্ষেত্রে এ গুনাহ থেকে তাওবাও সম্ভব হয় না। তাই এর ভয়াবহতা খুবই বেশি। কিন্তু এ ধরনের মুসলমান ব্যক্তিরও জানাজা পড়তে হবে। তবে সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের এসব জানাজায় শরীক না হওয়া ভালো। আর এদের জন্য মাগফেরাতের দোয়া করা সম্পূর্ণ জায়েজ।(বুখারি শরিফ ১/১৮২; রদ্দুল মুহতার ২/২১১; ফাতওয়ায়ে আলমগিরি ১/১৬৩)