আজকের সেরা সংবাদ

‘দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে’

দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভিকারুননেসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষে এ কথা জানিয়েছেন ছাত্রী প্রতিনিধি আনুশকা রায়।

তিনি জানান, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যাকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা আন্দোলন থেকে আমরা ছয়টি দাবি তুলেছি। যার একটিও এখনও মানা হয়নি। আমরা জানি ৬টি দাবির সবগুলো এখনই বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। কিন্তু এর মধ্যে অধ্যক্ষের পদত্যাগ এবং ৩০৫ ও ৩০৬ ধারায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অপরাধে তার শাস্তি নিশ্চিত করা, পরিচালনা পর্ষদের সবাইকে একযোগে পদত্যাগ এবং অরিত্রীর বাবা-মায়ের কাছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিঃশর্ত ক্ষমা, এই তিনটি দাবি এখন বাস্তবায়ন করা সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় লিখিতভাবে আশ্বাস দিলেই আমরা আন্দোলন থেকে সরে যাব। ক্লাসে ফিরে যাব।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, যেহেতু আমরা বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের পদত্যাগ দাবি করছি সুতরাং তাদের কাছে এর কোনোটিরই প্রতিশ্রুতি চাই না। আমরা চাই শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে পরিপূর্ণভাবে হস্তক্ষেপ করুক। তারা নতুন পরিচালনা পর্ষদ গঠন করুক। সেই পর্ষদই নতুন করে প্রিন্সিপাল নিয়োগসহ অন্যান্য সমস্যার সমাধান করবে।

আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ইতোমধ্যে গ্রেফতার হওয়া শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনার বিষয়ে কোনো কিছু করার নেই জানিয়ে তারা বলেন, অরিত্রীর বাবার দায়ের করা মামলায় তিনি গ্রেফতার হয়েছেন। এটি সম্পূর্ণ আইনি ব্যাপার। আমাদের দাবির কোথাও এটি ছিল না।

গণমাধ্যমের সামনে এসব কথা বলার পর তারা স্কুলের মূল গেটের সামনে জড়ো হয়ে আবারও বিক্ষোভ করতে থাকে।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার শান্তিনগরে নিজের বাসায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, আগের দিন রোববার পরীক্ষায় মোবাইল ফোনে নকল নিয়ে টেবিলে রেখে লিখছিল অরিত্রী। অন্যদিকে স্বজনদের দাবি, অরিত্রী নকল করেনি।

সোমবার অরিত্রীর বাবা-মাকে স্কুলে ডেকে নেওয়া হয়। তখন অরিত্রীর সামনে তার বাবা-মাকে অপমান করা হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। অরিত্রীকে টিসি দেওয়ার কথাও বলা হয়েছিল। স্বজনরা বলছেন, বাবা-মার অপমান সইতে না পেরে ঘরে ফিরে আত্মহত্যা করে অরিত্রী।