খেলাধুলা

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে উইন্ডিজরা

ফাইল ছবি

স্পোর্টসডেস্ক: ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে টস জিতেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছেন সরফরাজদের।

নটিংহামে আজ বিগত দুই বারের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি এক বারের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান।

বিশ্বকাপের মত এতোবড় টুর্নামেন্ট শুরুর আগে পাকিস্তানের পারফরম্যান্স রীতিমতো হতাশাজনক। শেষ ১০টি ওয়ানডে ম্যাচে পরাজিত হয়েছেন টিম পাকিস্তান।
প্রথমে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচটি এবং ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চারটি ম্যাচে হারের পরে ওয়ার্ম আপ ম্যাচে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে সাবেক এই বিশ্ব চ্যাপিম্পয়নদের।

এমন অবস্থায় দু’ বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয় সরফরাজদের প্রেরণা জোগাচ্ছে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আগেও পরিস্থিতি অনেকটা এ রকমই ছিল। সেই টুর্নামেন্টের আগেও বেশ কয়েকটি ম্যাচে হারতে হয়েছিল পাকিস্তানকে। কিন্তু, টুর্নামেন্ট শুরু হতেই ছবিটা বদলে যায়। ভারতকে ফাইনালে ধরাশায়ী করে পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন হয়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর আগে পাকিস্তানি অধিনায়ক সরফরাজ বলেন, ‘ছেলেরা পুরোদস্তুর তৈরি। আগের ম্যাচগুলোয় হারের স্মৃতিকে পিছনে সরিয়ে রেখে ছেলেরা সামনের দিকেই তাকাতে তৈরি। আমরা এক মাস ধরে ইংল্যান্ডের পরিবেশে প্র্যাকটিস করছি। এই টুর্নামেন্টে যে আমরা ভাল করব, তা সবাই বিশ্বাস করতে শুরু করেছে।’

দলে নেই কোনো সুপারস্টার। পুরনোদের মধ্যে সুযোগ পাওয়া ক্রিকেটারদের কেউই স্বীকৃত তারকা নন। প্রতিষ্ঠিত সুপারস্টারদের মিলনমেলা হিসেবে খ্যাত বিশ্বকাপের ১২তম আসরের তারকাবিহীন দল পাকিস্তান। শিরোপা ফেবারিটের তালিকায়ও জায়গা হয়নি মেন ইন গ্রিনের। এর পরও তাদেরকে হিসাবের বাইরে ঠেলে দেয়ার দুঃসাহস দেখাতে যাচ্ছেন না কেউ। ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের ‘ডার্কহর্স’ তারুণ্য ও অভিজ্ঞতার মিশেলে গঠিত পাকিস্তান। নতুন চমক সৃষ্টির প্রত্যয়েই আজ দলটি মাঠের লড়াইয়ের সূচনা করছে আইসিসির ১২তম মেগা টুর্নামেন্টের।

অন্যদিকে সবাইকে বিস্মিত করেই আচমকা ক্রিকেটাঙ্গনের শিরোনামে উইন্ডিজ। বিশ্বকাপের আয়োজক ইংল্যান্ড সফরে দ্বিপক্ষীয় সিরিজের দুর্দান্ত নৈপুণ্য প্রদর্শনে তারা উঠে এসেছে অসংখ্য ভক্তের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে। বিধ্বংসী ব্যাটিংলাইন ও ক্রিকেটের মেগা আসরের অতীত সাফল্যে উজ্জীবিত উইন্ডিজকেও ২০১৯ সালের টুর্নামেন্টের অন্যতম ডার্কহর্স হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকদের অনেকেই।

ক্রিস গেইল সমৃদ্ধ উইন্ডিজের প্রধান শক্তি অভিজ্ঞতায় ভরপুর ব্যাটিং ইউনিট। দারুণ ফর্মেও আছেন দলটির ব্যাটসম্যানরা। ক্রিকেটাঙ্গনের হট কেকে টপঅর্ডারের অন্যতম সদস্য সাই হোপের সাম্প্রতিক রান উৎসব পরিণত হয়েছে। সর্বশেষ প্রস্তুতি ম্যাচে শতক হাঁকিয়ে বিশ্বকাপ শুরুর ড্রেস রিহার্সেল সেরে নিয়েছেন হোপ। তার ব্যক্তিগত সাফল্য গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টরও হবে বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দলীয় সাফল্য-ব্যর্থতায়। ইংল্যান্ডের ফ্ল্যাট উইকেটে তাদের বড় সংগ্রহের টার্গেট পূরণে বাজির ঘোড়া ক্যারিবীয় সাইক্লোন খ্যাত ক্রিস গেইল। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের শেষ মেগা আসরে ব্যাটিং ঝড় তোলার ব্যাপারে দারুণ আশাবাদী ক্যারিবীয় ওপেনার। স্লগ ওভারে দ্রুততার সাথে রান তোলার চ্যালেঞ্জে সফলতা অর্জনের সামর্থ্য রয়েছে উইন্ডিজের। যেকোনো বোলিং ইউনিটের জন্যই দুঃস্বপ্ন হিসেবে উদ্ভাসিত হতে সক্ষম আন্দ্রে রাসেল ও জেসন হোলডার।

অভিজ্ঞতা ও পরীক্ষিত পারফরমার বিবেচনায় বোলিং বিভাগে কিছুটা হলেও পিছিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বল হাতে দলটির নেতৃত্ব দেয়ার অর্পিত হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অভিজ্ঞায় তুলনামূলক পিছিয়ে থাকা ইউনিটের ওপর। পেস অ্যাটাকে ক্যারিবীয়দের একমাত্র সিনিয়র ক্রিকেটার কেমার রোচ। তাকে সাপোর্ট দেয়ার জন্য কটরেল ও গ্যাব্রিয়েলকে বেছে নেবে উইন্ডিজ। চতুর্থ পেসার হিসেবে তাদের প্রথম পছন্দ অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল।

পাকিস্তান একাদশ:
সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), ফখর জামান, হাসান আলি, ইমাম-উল-হক, মোহাম্মদ হাফিজ, শাদাব খান, বাবর আজম, হারিস সোহেল, ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ আমির, ওয়াহাব রিয়াজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ :
জেসন হোল্ডার (অধিনায়ক), ডরেন ব্রাভো, শিমরন হেটমায়ের, নিকোলাস পুরান, আন্দ্রে রাসেল, কার্লোস ব্রাথওয়াইট, শেলডন কোটরেল, ক্রিস গেইল, শাই হোপ, এসলে নার্স, ওশানে থমাস।