আর্ন্তজাতিক

কাতারকে দ্বীপ বানাতে ‘খাল কাটছেই’ সৌদি

মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিবেশী দুই মুসলিম রাষ্ট্র সৌদি আরব ও কাতার। তবে তাদের মধ্যে দিন দিন সম্পর্কের ব্যাপক অবনতি হচ্ছে। যার পরিণতিতে গত বছর কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় সৌদিসহ চার দেশ। এবার কাতারকে দ্বীপ রাষ্ট্রে পরিণত করতে কাতারের সঙ্গে থাকা সীমান্তের সবটুকুজুড়ে বিশাল খাল কাটার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সৌদি।

কাতারের তিন দিকে পারস্য উপসাগর। আর স্থলবেষ্টিত দিকটি সৌদির সঙ্গে লাগোয়া। সেই অংশের পুরোটাজুড়ে ‘পূর্ব সালওয়া দ্বীপ প্রকল্প’ নামে খাল খনন করবে সৌদি। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে কার্যত সম্পূর্ণ দ্বীপ রাষ্ট্রে পরিণত হবে কাতার।

শুক্রবার সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মাদ বিন সালমানের শীর্ষ উপদেষ্টা সাউদ আল-কাহতানি এক টুইটে বলেন, ‘একজন নাগরিক হিসেবে আমি অধীর আগ্রহ নিয়ে ‘পূর্ব সালওয়া দ্বীপ প্রকল্প’ বাস্তবায়নের অপেক্ষা করছি। এই মহান ও ঐতিহাসিক প্রকল্প মধ্যপ্রাচ্যের ভৌগোলিক মানচিত্রকে পরিবর্তন করে দেবে।”

গত এপ্রিলে এই প্রকল্পের ঘোষণা দেয় সৌদি। সেসময় জানানো হয়, এই খালের দৈর্ঘ্য হবে ৬০ কিলোমিটার, প্রস্ত হবে ২০০ মিটার এবং ২০ মিটার গভীর হবে। কাতার সীমান্ত থেকে ৯৬৫ মিটার বা এক কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে। তবে ওই অঞ্চলে সৌদির খাল কাটার মূলত উদ্দেশ্য কাতারকে বিচ্ছিন্ন করা বলে অভিযোগ আন্তর্জাতিক মহলের।

৭৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার ব্যয়ে নির্মিত এই প্রকল্পকে পর্যটন রিসোর্ট এবং পরমাণু বর্জ্যের ডাম্পিং কেন্দ্র বানানো হবে। গত জুন মাসে প্রভাবশালী এক সৌদি পত্রিকা জানিয়েছিল, পরিকল্পনা বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সৌদি সরকার এবং এরইমধ্যে আন্তর্জাতিক পাঁচটি কোম্পানি দরপত্রে অংশ নিয়েছে। বিজয়ী কোম্পানির নাম ঘোষণা করা হবে সেপ্টেম্বর মাসে।

কাতারের সঙ্গে যখন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসরের মারাত্মক দ্বন্দ্ব চলছে। এবছর হজ করতে পারেনি কাতারিরা।

এর আগে গত বছর কাতারের সঙ্গে সবধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি জোট। এছাড়া সৌদির নেতৃত্বে চার দেশ কাতারের ওপর সবধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। হঠাৎ করে এমন নিষেধাজ্ঞার পর ব্যাপক সংকটে পড়ে আমদানি নির্ভর দেশ কাতার। চার মাস পরে সেই নিষেধাজ্ঞার কিছু অংশ উঠে গেলেও এ থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে কাতার। প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে গরুর খামার, গবাদি পশুর খামারসহ প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই। প্রতিবেশী দেশগুলোর সহযোগিতা ছাড়ায় ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে কাতার।