বিশেষ প্রতিবেদন

ওয়ার্কশপে চলছে গাড়ি মেরামত, বিক্রি হয়ে গেছে টিকিট

ওয়ার্কশপে গাড়ি মেরামতের কাজ চলছে। অথচ বিক্রি হয়ে গেছে টিকিট। ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ সামাল দিতে, প্রতি বছর এ ধরনের ঘটনা এখন নতুন কিছু নয়। লক্কর-ঝক্কর এমন বাসের কারণে ঈদযাত্রায় বাড়ে দুর্ঘটনার ঝুঁকি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুর্ঘটনারোধে লোভ সংবরণ করতে হবে পরিবহন ব্যবসায়ীদের। আর সচেতন হতে হবে যাত্রীদেরও।

রাজধানীর দুই কোটি মানুষের বেশিরভাগই প্রতি ঈদে লঞ্চ-ট্রেন কিংবা বাসে করে নগরী ছাড়ে। একসঙ্গে এত মানুষ ঢাকা ছাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই পরিবহনের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে। এমন সুযোগ কাজে লাগিয়ে বেশি লাভের জন্য বাতিল, ফিটনেসহীন, লক্কর-ঝক্কর বাস নামান এক শ্রেণির পরিবহন মালিক।

রাজধানীর গাবতলী, সাভার, টঙ্গী, গাজীপুর, ডেমরা, যাত্রাবাড়ী, কাজলা নারায়ণগঞ্জ ও মানিকগঞ্জের বিভিন্ন গ্যারাজে এখন পরিত্যাক্ত গাড়ি মেরামতের কাজ চলছে।

এসব বাস ওপর দিকে ফিটফাট মনে হলেও লক্কর-ঝক্কর ইঞ্জিনের কারণে প্রায়ই যাত্রাপথে বিপত্তি ঘটে। বিড়ম্বনায় পড়েন যাত্রীরা।

অবাক বিষয় হলো, বাস গ্যারাজে থাকলেও পরিবহন কোম্পানিগুলো ঠিকই অতিরিক্ত টিকিট বিক্রি করে। পরে সুযোগ বুঝে লক্কর-ঝক্কর বাসগুলোতে যাত্রীদের সওয়ারী হতে বাধ্য করেন। যানবাহন সংকটের সুযোগে, প্রতি বছরই ঈদ মওসুমে কিছু পরিবহন মালিক এমন অপকৌশল নেন।

এ ব্যাপারে পরিবহন বিশেষজ্ঞ ও বুয়েটের অধ্যাপক ড. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সরকারকে কঠোর হাতে এসব বন্ধ করতে হবে। অন্যথায়, দুর্ঘটনারোধ করা সম্ভব হবে না।