খেলাধুলা

আইসিসি-বিসিসিআই সংঘাত চরমে

ভারতকে তোয়াক্কা না করে নতুন ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম (এফটিপি) ঘোষণা করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। এর তীব্র বিরোধিতায় সরব ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। বিশ্ব ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার এ আচরণ অনৈতিক বলে দাবি করছে তারা।

সোমবার দুবাইয়ে আইসিসির সদর দফতরে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়। তাতে প্রতি চারের পরিবর্তে ৩ বছর অন্তর ওয়ানডে বিশ্বকাপ এবং ১ বছর পর পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ২০২৩ বিশ্বকাপের পর থেকে শুরু হবে নতুন এ চক্র, চলবে ২০৩১ সাল পর্যন্ত। সঙ্গে থাকছে আরও দুটি বাড়তি আসর। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আদলে হবে এ দুই টুর্নামেন্ট।

আইসিসির এ সিদ্ধান্ত ও আচরণ মেনে নেবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে বিসিসিআই। এভাবে চললে আইসিসি’র মেম্বার্স পার্টিশিপেশন এগ্রিমেন্টে সই করবে না বলেও হুমকি দিয়েছে বিশ্বের প্রভাবশালী বোর্ড।

বিসিসিআই’র সভাপতি থাকাকালীন বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থার বর্তমান চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহরের কাজের ধরন নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন অনুরাগ ঠাকুর ও এন শ্রীনিবাসন। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ঠিক আগে আইসিসির সঙ্গে মেম্বার্স পার্টিশিপেশন এগ্রিমেন্টে বাতিলও করতে চায় ভারতীয় বোর্ড।

বিসিসিআই’র নতুন সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গেও আইসিসির বিরোধ বাঁধছে, তা নিশ্চিত। বোর্ডের মসনদে বসার আগেই বিশ্ব ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিরুদ্ধে তোপ দাগিয়েছেন তিনি।

দাদা বলেন, ক্রিকেট বিশ্বে ৭০-৮০ শতাংশ উর্পাজন সরবরাহ করে ভারত। সেক্ষেত্রে আইসিসি থেকে টিম ইন্ডিয়ার আরও বেশি টাকা পাওয়া উচিত। শেষ কয়েক বছরে ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা থেকে বিসিসিআই কোনও অর্থ পায়নি বলেও অভিযোগ করেছেন বাংলার মহারাজ।