খেলাধুলা

‘অসম্ভবের’ পেছনে ছুটে চাপে অস্ট্রেলিয়া

অ্যাডিলেড টেস্ট জিততে হলে রেকর্ড গড়তে হবে অস্ট্রেলিয়াকে। এই মাঠে গত ১০০ বছরে চতুর্থ ইনিংসে দুইশ রানের বেশি তাড়া করে জিততে পারেনি তারা। অথচ বিরাট কোহলির ভারত তাদের ৩২৩ রানের লক্ষ্য ধরিয়ে দিয়েছে। সেই অসম্ভব লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে ১০৪ রান করতে হারিয়েছে ৪ উইকেট।

অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন শন মার্শ ও ট্র্যাভিস হেড। আগের ইনিংসেই অস্বস্তিকর এক রেকর্ড ছুঁয়েছিলেন মার্শ। ১৩০ বছরের মধ্যে প্রথম অস্ট্রেলিয়ান টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে টানা ৬ ইনিংসে দশ রানের কম করে আউট হয়েছেন তিনি।

সেই অস্বস্তি ঢাকতেই হয়তো এই ইনিংসে বেশ রয়ে সয়ে খেলছেন মার্শ। চতুর্থ ইনিংসে রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও মোহাম্মদ শামিদের বিপক্ষে প্রতিরোধ গড়ে অপরাজিত আছেন ৩১* রানে। অপর প্রান্তে হেড অপরাজি ১১* রানে।

এদিন ভারতের দেওয়া লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ২৮ রানে ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চকে হারায় স্বাগতিকরা। অশ্বিনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেওয়ার আগে ফিঞ্চ করেন ১১ রান। ফিঞ্চের বিদায়ের পর খুব বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেননি অন্য ওপেনার মার্কুস হ্যারিসও। তিনিও উইকেটকিপারের গ্লাভসে বল জমা দিয়ে মাঠ ছাড়েন। শামির বলে আউট হওয়ার আগে তিনি করেছেন ২৬ রান।

প্রথম ইনিংসে কিছুটা প্রতিরোধ গড়া উসমান খাজা এই ইনিংসে ৮ রানের বেশি করতে পারেননি। অশ্বিনের বলে রোহিত শর্মার তালুবন্দি হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। আর ৫ নম্বরে নামা পিটার হ্যান্ডসকম্বকে (১৪) ফেরান শামি।

এর আগে চেতেশ্বরা পুজারা ও আজিঙ্কা রাহানের ব্যাট ভর দিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩০৭ রান করে অল আউট হয় ভারত। পুজারা ৭১ ও রাহানে ৭০ রান করেছেন। এছাড়া লোকেশ রাহুল ৪৪, বিরাট কোহলি ৩৮ ও ঋশভ পান্ত ২৮ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ১২২ রানে ৬ উইকেট নিয়েছেন নাথান লায়ন। মিচেল স্টার্ক নিয়েছেন ৩ উইকেট। স্বাগতিকরা তাদের প্রথম ইনিংসে অর আউট হয় ২৩৫ রানে।